লক্ষ্মীপুরে ফুলকপির বাম্পার ফলন

স্বাবলম্বী কৃষকরা

লক্ষ্মীপুরে চলতি মৌসুমে ফুলকপির ভালো ফলন হয়েছে। অল্প খরচে লাভ বেশী হওয়ায় ফুলকপি চাষ করে হাসি ফুটেছে কৃষকের মুখে। খরচের তুলনায় লাভ বেশি হওয়ায় দিন দিন এ অঞ্চলে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে ফুলকপি চাষ।

অনূকুল আবহাওয়া, সময়মত বীজ বপন ও সুষম সার ব্যবহারের এবার কপির ফলনও হয়েছে ভাল। এতে লাভের মুখ দেখছেন চাষীরা। এলাকার উৎপাদিত কপি চাহিদা মিটিয়ে সরবরাহ হচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলায়। 

চলতি মৌসুমে নানা প্রতিকুল আবহাওয়ার মাঝেও লক্ষ্মীপুরে ৩ হাজার ৬৪০ হেক্টর জমিতে রকমারি শীতকালিন সবজির আবাদ করা হয়। এর মধ্যে ১৩৭ হেক্টর জমিতে আবাদ করা হয়েছে ফুলকপি। অনুকুল আবহাওয়া, সময়মত বীজ বোপন ও সুষম সারের ব্যবহারের ফলে এবার লক্ষ্মীপুরে ফুলকপির বাম্পার ফলন হয়েছে।

কৃষকরা তাদের উৎপাদিত কফি এখন বাজারজাত করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। বাজার দরও পাচ্ছেন ভাল। এতে হাসি ফুটেছে কৃষকের মুখে। 

কৃষকরা জানান, একটি ফুলকপি উৎপাদন করতে তাদের গড় খরচ হয় ৯ থেকে ১০টাকা। বাজারে চাহিদা ভালো থাকায় উৎপাদিত ফুলকপি প্রকার ভেদে বিক্রী করে কৃষকরা পাচ্ছেন ৪০ থেকে ৪৫ টাকা।

শীতকালিন সবজি ফুলকপি আবাদ করে ভালো লাভ হওয়ায় এখানকার কৃষকরা ফুলকপিসহ শীতকালিন সবজি চাষে ক্রমেই আগ্রহী হয়ে উঠছেন।

শীতকালিন সবজি ফুলকপি আবাদ করে লাভবান হওয়ায় এঅঞ্চলের কৃষকদের ফুলকপি চাষে দিন দিন আগ্রহ বাড়ছে বলে জানালেন, কৃষি সম্প্রাসারণ অধিদপ্তরের এই কর্মকর্তা,কৃষিবিদ মোঃ বেলাল হোসেন খান, উপ-পরিচালক, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, লক্ষ্মীপুর।

মন্তব্য লিখুন :