এনজিওর ঋণের কিস্তি আদায় স্থগিত সত্ত্বেও ঋণ আদায়ের প্রচেষ্টা

করোনাভাইরাস আতঙ্ক এখন বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বে। এমন পরিস্থিতিতে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে দরিদ্র মানুষের অবস্থা বিবেচনা করে জেলায় সকল এনজিওর কিস্তি আদায় স্থগিত করা হয়েছে।

সোমবার (২৩মার্চ) দুপুরে জরুরি এক সভায় বর্তমান করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত পরিস্থিতিতে এনজিও সমূহের যৌথসভায় জনস্বার্থে ২৪ মার্চ থেকে আগামী ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত ফরিদপুর জেলার সকল এনজিও সমূহের ঋণের কিস্তি আদায় স্থগিত করা হয়। 

এফডিএ এর নির্বাহী পরিচালক আজাহরুল ইসলামের সভাপতিতে আরো উপস্তিত ছিলেন, ফজলুল হাদী ছাব্বির,কাজী আশরাফ হোসেন, সুরেশ হালদার প্রমুখ।

কিন্তু দেশের এই ক্রান্তি লগ্নে এই সিদ্ধান্ত মানছে না বেশ কিছু এনজিও। আজও তারা বিভিন্ন ভাবে বাসায় গিয়ে ও ফোনে যোগাযোগ করে ঋণ আদায়ের চেষ্টা চালাচ্ছে।এতে জনমনে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে। 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কিছু ঋণ গ্রাহক/ গ্রহিতা অভিযোগ করেন যে, করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত পরিস্থিতিতে এনজিও সমূহের যৌথসভায় জনস্বার্থে ২৪মার্চ থেকে আগামী ১৫এপ্রিল পর্যন্ত ফরিদপুর জেলার সকল এনজিও সমূহের ঋণের কিস্তি আদায় স্থগিত করা হয়। তার পরেও কিভাবে তারা এই কিস্তির আদায়ের জন্য চাপ আদায় করছে এটা তাদের বোধগম্য হচ্ছে না, বিধায় ক্ষেটে খাওয়া শ্রমজীবি মানুষরা অনেক সমস্যার মধ্যে রয়েছে।

তারা আরো জানান, এই স্থগিত আদেশের পরেও ঋণ আদায়ের ক্ষেত্রে সব থেকে বেশি আদেশ অমান্য করছে গ্রামীন ব্যাংক । তাই তারা অবিলম্বে জেলা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন ও এই ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নিয়ে শ্রমজীবি মানুষের সমস্যা সমাধানের জন্য বিশেষ অনুরোধ করেছেন।

মন্তব্য লিখুন :