এইচএসসি পরীক্ষার বিষয় কমিয়ে আনা হবে: শিক্ষামন্ত্রী

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে এ বছর অনুষ্ঠিতব্য উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার (এইচএসসি ও সমমান) দিন ও বিষয় কমিয়ে আনার চিন্তা করছে সরকার। মহামারির কারণে পরীক্ষা স্থগিত হয়ে থাকায়, এই চিন্তা করা হচ্ছে বলে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেছেন।

আজ শনিবার এডুকেশন রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত ‘শিক্ষায় করোনাভাইরাসের চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক এক ওয়েবিনারে বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, পরীক্ষার্থীরা তাদের সিলেবাসের অনেকখানি শেষ করে ফেলেছে। এ কারণে সিলেবাস কমানো হচ্ছে না।

এটা পাবলিক পরীক্ষা। তাই, পরীক্ষার আয়োজনের ফলে লাখো শিক্ষার্থী, অভিভাবক, আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্য, সবার স্বাস্থ্য ঝুঁকির বিষয়টি খেয়াল রাখা হচ্ছে। তাই, সবকিছু স্বাভাবিক হয়ে আসার ১৫ দিন পর এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া হবে।

‘আমরা পরীক্ষার দিনের সংখ্যা ও বিষয়গুলোকে কমানোর কমানোর কথা ভাবছি,’ তিনি বলেন।

গত ১ এপ্রিল থেকে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণার সঙ্গে স্থগিত করা হয় পরীক্ষা। নয় হাজারেরও বেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় দশ লাখ শিক্ষার্থীর এবার পরীক্ষায় বসার কথা রয়েছে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের ফলে, শিক্ষার্থীদের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের জন্য আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত একাডেমিক ক্যালেন্ডার বাড়ানো হতে পারে।

‘আমরা বছরে ১৪০ বা ১৪২ দিনের বেশি ক্লাস নিতে পারি না। বিভিন্ন ধরনের ছুটি ও প্রোগ্রাম থাকে। তাই আমরা ২০২০ শিক্ষাবর্ষের বাকি ছুটি থেকে এবং ২০২১ শিক্ষাবর্ষের ছুটি থেকে কিছু কিছু ছুটি বাদ দেওয়ার কথাও ভাবছি,’ যোগ করেন শিক্ষামন্ত্রী।

মন্তব্য লিখুন :