আ.লীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ

আজ ২৩ জুন। ১৯৪৯ সালের এই দিনে ঢাকার কেএম দাস লেনের রোজ গার্ডেনে জন্ম নেয়া দেশের প্রাচীনতম রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। ভাষা আন্দোলন থেকে মুক্তিযুদ্ধসহ সব আন্দোলন-সংগ্রামে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেয়া দলটি এবার পা রাখছে ৭২ বছরে। দীর্ঘ এই পথচলায় এসেছে বাধা-বিপত্তি-দুর্যোগ-দুর্বিপাক। পাড়ি দিতে হয়েছে নানা চড়াই-উতরাই।

করোনার কারণে তিন মাস ধরেই মানুষ অনেকটা ঘরবন্দী। এ সময় রাজনীতিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একে অন্যের খোঁজ নেওয়া, কিছু ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা, ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হওয়া, এতেই সীমাবদ্ধ হয়ে পড়েছে। এরই মধ্যে বছর ঘুরে দেশের পুরোনো ও ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী চলে এল।

এবার আর খোলা মাঠে, অনেক মানুষের সমাগমে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচি হচ্ছে না। সবই চার দেয়ালে, ডিজিটাল মাধ্যমে সীমাবদ্ধ থাকছে। বাইরের কর্মসূচির বলতে ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি ও গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ায় তাঁর মাজারে স্বল্পসংখ্যক মানুষের উপস্থিতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন রয়েছে।

আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন, এ বছর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সাজসজ্জা ও অন্যান্য কর্মসূচির খরচ বাঁচিয়ে তা দুস্থদের মাঝে ব্যয় করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

প্রতিবছরই ২২ জুন দিবাগত রাত ১২টা ১ মিনিটে মহানগর ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে কেক কেটে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজন শুরু হতো। এরপর সূর্যোদয়ের ক্ষণে সব দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হতো। আর সকালে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কের বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে দলীয় সভাপতিসহ অন্যরা ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতেন। এ ছাড়া আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও করা হতো। কিন্তু এবার করোনাভাইরাসের মহামারির কারণে দলের সব কর্মসূচিই স্থগিত করা হয়েছে।

দেশ স্বাধীন হওয়ার মাত্র সাড়ে তিন বছরের মাথায় ১৯৭৫-এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবার হত্যা করে কিছু বিপদগামী সেনাসদস্য। এরপর সাময়িকভাবে কিছুটা দিশেহারা হয়ে পড়ে আওয়ামী লীগ। ১৯৮১ সালের ১৭ মে দেশে ফিরে এসে দলের হাল ধরেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তারপর থেকেই তিনি এই দলের সভাপতি।

দীর্ঘ ২১ বছর লড়াই সংগ্রামের মাধ্যমে ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। ২০০১ সালে ক্ষমতার বাইরে চলে যায় দলটি। এক-এগারোর ঝঞ্ঝা মোকাবিলা করে ২০০৯ সালে পুনরায় শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ ও এর মিত্ররা। সেই থেকে টানা ক্ষমতায় শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগ। পরবর্তী সময়ে ২০১৪ সালের ৫ জানুযারির এবং ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর সাধারণ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বাণী দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, বাঙালি জাতির প্রতিটি মহৎ, শুভ ও কল্যাণকর অর্জনে আওয়ামী লীগের ভূমিকা রয়েছে। ভবিষ্যতেও জনগণকে সঙ্গে নিয়ে জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত, সুখী-সমৃদ্ধ, উন্নত ও আধুনিক সোনার বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করবে আওয়ামী লীগ।

মন্তব্য লিখুন :