ধামইরহাটে

ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে কৃষকের বাড়িতে ভাংচুরের অভিযোগ

নওগাঁর ধামইরহাট উপজেলার আলমপুর ইউনিয়নের অন্তর্গত ৫নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মোঃ আবু মুছা ও তার বাহিনী মিলে এক কৃষকের বাড়িতে ভাংচুর করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে ভুক্তভোগী কৃষক ইউপি সদস্যসহ মোট ১০ জনকে আসামী করে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

শুক্রবার (১৯ মার্চ) দুপুরে উপজেলার আলমপুর ইউনিয়নের ভেড়ম সোনাদিঘী নামক এলাকায় ঘটনাটি ঘটে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, জোতভুক্ত ২৯ শতাংশ জমিতে কৃষক মোঃ আবু কালাম দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছিলেন। ওই কৃষকের বাড়ির মাটির দেয়াল ক্ষতিগ্রস্ত হলে ইট দিয়ে প্রাচীর নির্মাণের কাজ শুরু করেন। প্রাচীরের পাশে রেকর্ড বিহীন জনসাধারণ চলাচলের উদ্দেশ্যে ১০ ফিটের একটি রাস্তা রয়েছে। রাস্তা থেকে ৩ ফিট দূরত্ব বজায় রেখে ভুক্তভোগী কৃষক প্রাচীর নির্মাণ করেন। গৃহনির্মাণ মিস্ত্রি দ্বারা ওইদিন নবনির্মিত প্রাচীরের মাঝে ৪ ফিট দরজা রেখে উপরে উভয় পাশের ৩৬ ইঞ্চির একটি সানসেট নির্মাণের কাজ শুরু করেন।

ভুক্তভোগী কৃষক মোঃ আবু কালাম বলেন, রাস্তা থেকে ১৩ ফিট দূরত্বে প্রাচীর নির্মাণ করেছি। তাহলে আমার প্রাচীরসহ এই সানসেট কিভাবে রাস্তার মধ্যে পড়ে। আমার বাড়ির পাশেই আরও একটি বাড়ি রয়েছে। সানসেটসহ সেই বাড়ির পুরো প্রাচীর রয়েছে রাস্তাটির ভেতরে।

এসময় ইউপি সদস্য আবু মুছা, আব্দুল মজিদ, আব্দুল ছোবাহানসহ আরও ১০-১২ জন মিলে লোহার শাবল, হাম্বরসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ওই কৃষকের নির্মাণাধীন প্রাচীরের সানসেট অন্যায় ভাবে জোরপূর্বক ভেঙে ফেলেন। এছাড়াও ওই কাজ বন্ধ করতে মিস্ত্রিসহ বাড়ির মহিলাদের জীবন নাশের হুমকি প্রদান করেন।

গ্রামের স্থানীয় জনসাধারণ বলেন, রাস্তাটির অনেকটা ভেতরেই একটি কারেন্টের পোল রয়েছে। পুলের এপার থেকে নতুন করে রাস্তাটি বের করে আনবার জন্য এই সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে।
এবিষয়ে ইউপি সদস্য আবু মুছা জানান, গত মাসে স্থানীয়রা মিলে এক বৈঠকে ওই কৃষককে শুধু প্রাচীর নির্মাণের কথা বলা হয়েছিল তার প্রাচীর নিজস্ব জায়গাতে রয়েছে এবং প্রাচীরের সানসেট রাস্তার ভেতরে পরেছে সেজন্য এলাকাবাসীসহ সানসেটটি ভেঙে দেয়া হয়েছে।
ধামইরহাট থানার অফিসার ইনচার্জ আবদুল মমিন জানান, আজ দুপুরের পরে অভিযোগটি হাতে পেয়েছি। সরজমিনে গিয়ে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য লিখুন :