বড় ছোট না দেখে অবদান দেখুন, পুলিশকে ভালোবাসতে শিখুন : ওসি দিপু

কে বড় কে ছোট এমন প্রতিযোগিতায় না গিয়ে প্রত্যেকের অবদান দেখার অনুরোধ জানিয়ে ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছেন মির্জাপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) শেখ রিজাউল হক দিপু। তিনি তার লিখায় পুলিশকে ভালোবাসতে শেখার কথা বলেছেন। তিনি পোস্টে আরও বলেন আমরা কখনো কোন পরিস্থিতিতে কর্মবিরতিতে যাবো না।

পুলিশ পরিদর্শকের ফেসবুক স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলোঃ

মহান মুক্তিযুদ্ধের পরে জন্ম হয়েছে মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি মুক্তিযুদ্ধ হৃদয়ে লালন করি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রেখে যাওয়া সোনার বাংলাকে ভালোবাসি। রাষ্ট্রের জন্য কি না করেছি সেই ১০০ দিনের জ্বালাও-পোড়াও কর্মসূচি  গাড়িতে পেট্রলবোমা দাও দাও করে আগুন ওই সময় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ফ্রন্ট লাইনে ছিলাম দেশকে রক্ষা করতে।

৫ মে হেফাজতের তাণ্ডবের সময় সামনের সারিতে ছিলাম দেশের জান মালের নিরাপত্তা দিতে।  ১/১১ সময়ও বিশেষ শাখায় নিয়োজিত থেকে দেশের গুরুত্বপূর্ণ বিশেষ ব্যক্তির নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলাম।

জঙ্গি দমনে নিজের জীবন বাজি রেখে মাঠে কাজ করেছি। জঙ্গি দমন সঠিক ভাবে না করতে পারলে আজকে অনেকেই ঘর থেকে বের হতে পারতেন না।

কথিত ছাত্র আন্দোলনের নামে যখন দেশে নৈরাজ্য শুরু হল তখনো সামনের সারিতে ছিলাম। 

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় রপ্তানি খাত পোশাক শিল্পকে ধ্বংসের জন্য যখন জ্বালাও-পোড়াও করে যখন ধ্বংসযজ্ঞে মেতে উঠেছিল দুষ্কৃতকারীরা তখনো সামনের সারিতে ছিলাম। 

পোশাক শিল্পকে বাঁচাতে যেয়ে ২/৩ দিন রাস্তা থেকে আসতে পারিনি পা ফুলে পানি নেমে গেছে। শ্রমিকদের ইটের ঘাই আর গাড়ি পোড়ানো তাণ্ডব থেকে রক্ষা করেছি, একশ্রেণীর দুষ্কৃতকারীরা উদ্দেশ্য ছিল রাষ্ট্রকে ধ্বংস করা তখনো সামনের সারিতে ছিলাম আমরা।

স্বাধীনতার মহান স্থপতি কে হত্যা করে যখন পাকিস্তানের প্রেতাত্মারা রাষ্ট্রকে অকার্যকর করতে চেয়েছে তখনও বাংলাদেশ পুলিশের প্রতিটি সদস্য সামনের সারিতে অবস্থান নিয়েছেিলো সবার আগে।

কুড়ি বছর চাকরিতে অনেক দুর্যোগ দেখেছি পুলিশের ঊর্ধ্বতন অফিসারগণ রাষ্ট্রকে নিজের মায়ের মত মনে করে আমাদের সাথে নিয়ে কাজ করেছেন কারো মধ্যে ভণ্ডামি এবং পালিয়ে যাওয়ার প্রবণতা দেখিনি।

দেশকে ভালোবাসি ভালোবেসে যাবো কখনোই কর্মবিরতির হুমকি দিব না, কারণ পবিত্র ধর্মগ্রন্থ ছুঁয়ে শপথ করেছি ভীরুতা এবং দেশের বিরুদ্ধে কোন কার্যক্রমে কখনোই নিজেকে সম্পৃক্ত করবো না। রাষ্ট্রের সবাইকে শ্রদ্ধা করি সবাই পুলিশকে ভালোবাসতে শিখুন। 

কে বড় কে ছোট সেটা না দেখে কার কি অবদান সেটা দেখার অনুরোধ আমার। করোনাকালীন সময় প্রথম সারির অনেককেই দেখেছি। সবার পাশাপাশি ফ্রন্টলাইনে পুলিশ ছিল সবার আগে।

মন্তব্য লিখুন :