সওজের জায়গা দখল করে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ

সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশের জায়গা দখল করে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। এমনকি অসাধু চক্র এসব সরকারি যায়গা দখল করার ফলে রেহাই পাচ্ছেনা সড়কের পাশে থাকা ফুটপাতসহ পানিনিষ্কাশনের পথ। ফলে জানজটসহ হালকা বৃষ্টি হলেই রাস্তার উপর হাটু পানি জমে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে সাধারণ জনগণকে।

নওগাঁর ধামইরহাটে সড়ক ও জনপদ বিভাগের যায়গা দখল করার ঘটনা ঘটেছে উপজেলার আমাইতাড়া-নজিপুর আঞ্চলিত মহাসড়কের ফতেপুর নামক বাজারে। অর্থের লোভে কতিপয় অসাধু ব্যক্তি ওই এলাকায় সড়ক বিভাগের যায়গা ভরাট করে গড়ে তুলেছেন একাধিক টিনশেডের অবৈধ স্থাপনা। এতে ওই এলাকায় সাধারণ মানুষের মাঝে চাপা ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

শুধু তাই নয়, প্রতিটি ঘরের জন্য জামানত হিসেবে ভারাটিয়াদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে এসব স্থাপনা তৈরীর করে দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

অবৈধ স্থাপনা নির্মাণকারী মো. ছামসুল হক স্বীকার করে বলেন, এগুলো সরকারের জায়গা। পেছনে আমার জায়গা রয়েছে। সামনের অংশটা পুরোটা ফাঁকা থাকায় মাটি দিয়ে ভরাট করে টিনশেডের ঘর করে ভারা দিয়েছি।

সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার ফতেপুর বাজার এলাকায় আঞ্চলিক মহাসড়কের পূর্ব পার্শে ১০ মিটার এবং পশ্চিম পার্শে ১৩ মিটার সরকারি যায়গা রয়েছে। এসব সরকারী জায়গার শেষ সীমানা বরাবর এখনও বহু পুরোনো পিলার রয়েছে।

অথচ রাস্তার পশ্চিম পার্শে স্থানীয় বাসিন্দা মৃত আব্দুল কুদ্দুস মন্ডলের ছেলে মোফাজ্জল হোসেন ও মৃত খিদির শাহ এর ছেলে নাজমুল হক এবং মাসুদ নামের কতিপয় ব্যক্তি কিছু পিলার মাটি দিয়ে ভরাট করে টিনসেডের ঘর নির্মাণ করে চায়ের স্টল, মুদি দোকানসহ নানান দোকানঘর গড়ে তুলে জামানত হিসাবে ঘর প্রতি ৫০ হাজারের অধিক টাকা নিয়ে ভাড়া দিয়েছেন। এসব ঘর থেকে ওই অভিযোগকারীরা প্রতি মাসে ৫ শত টাকা করে ভাড়া তোলেন বলে জানা গেছে।

অভিযোগের বিষয়ে মো. মাসুদ জানান, জোতভুক্ত জমিতে আমি ঘর নির্মাণ করেছি। কিছুটা সওজের যায়গা হয়তবা পেয়েছে। কোন বাঁধা আসলে যায়গা ছেড়ে দেবো।

স্থানীয় বাসিন্দা এজাজুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, এই জায়গা গুলো পুরোটায় ফাঁকা ছিল। দিনে দুপুরে মাটি ভড়াট করে মোটা অংকের অর্থ বাণিজ্য হলেও দেখার কেউ নেই।

নওগাঁ জেলা সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সাজেদুর রহমান জানান, অবৈধ স্থাপনা দখল করে যারা ঘর নির্মাণ করেছে তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য লিখুন :