গরমে তৃষ্ণা নিবারণে জনপ্রিয় তালের শাঁস

কেউ বলে তালের শাঁস, কেউবা বলেন তাল কুর, কেউ বলে তালের আঁটি। একেক অঞ্চলে একেক নাম। গরমের মধ্যে তালের শাঁস অনেক উপকারী। এর মধ্যে রয়েছে অনেক গুনাগুণ।

তাই জ্যৈষ্ঠের এ মধু মাসে বাজারে নানা ফল উঠলেও বৈশ্বিক করোনা সংক্রমণ থামিয়ে রাখতে পারেনি মৌসুমি ফলের বাজার।

সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ও হাট-বাজারে উঠেছে মৌসুমি কচি তাল। গ্রীষ্মের তপ্ত গরমে তৃষ্ণা নিবারণে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে তালের শাঁস। কালিগঞ্জে জনপ্রিয় হয়ে ওঠা এ তালের শাঁসের বর্তমানে চাহিদা অনেক বেড়েছে।

শুক্রবার (২১ মে) উপজেলার বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখা গেছে, কচি কচি তাল সংগ্রহ করে পসরা সাজিয়ে বসেছে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। মৌসুমি ফল হিসেবে তালের শাঁসের বেশ চাহিদা থাকায় ক্রেতারা তা কিনছেন। চাহিদা মাফিক সময় মতো শাঁস কেটে সারতে পারছেন না বিক্রেতারা।

প্রতি পিস তালের শাঁস বিক্রি হচ্ছে ২/৫ টাকায়। সে হিসেবে একটি আস্ত কচি তাল ১২-২০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে।

উপজেলার পিরিজপুর এলাকার তালের শাঁস বিক্রেতা সাকিমুদ্দিন জানান, করোনাকালীন সময়ে হোটেল বন্ধ থাকায় কাজ নেই, তাই এ মৌসুমে তালের শাঁস বিক্রি করা শুরু করেছেন। বর্তমানে তালের শাঁস বিক্রি করে সংসার চালাচ্ছেন।

সদর উপজেলার আলী হোসেন থেকে থেকে কচি তাল ক্রয় করে শাঁস বিক্রি করেন। প্রায় দেড় থেকে দুই মাস চলে এই তালের শাঁস বিক্রির কাজ। ভিন্ন ভিন্ন স্থানে বসে দৈনিক প্রতিজন প্রায় ২০০ থেকে ৩০০ শাঁস বিক্রি করেন। এতে গড়ে প্রায় ৩০০-৩৫০ টাকা পর্যন্ত আয় হয়।

উপজেলার ফুলতলার মোড় এলাকার আরেক বিক্রেতা কামাল হোসেন জানান, কৃষিকাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন তিনি। বর্তমানে তেমন কাজ না থাকায় করোনাকালে পরিবারের আর্থিক সঙ্কট দেখা দেওয়ায় তালের শাঁস বিক্রি করা শুরু করেছেন। একটি শাঁস আকার ভেদে ১৬ থেকে ২০ টাকা দরে বিক্রি করা হয়। বর্তমানে চাহিদা থাকায় যেটুকু লাভ হচ্ছে তা দিয়ে সংসার চালানো হচ্ছে।

আবু হাসান নামে একজন স্কুল শিক্ষক বলেন, করোনাকালের এই ফল বেশ বিক্রি হচ্ছে। বিশেষ করে সব বয়সের মানুষ কিনে নিয়ে যাচ্ছে। তিনিও শাঁস সংগ্রহ করে বাড়ি নিয়ে যান।

কালের বিবর্তনে দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে তাল গাছ। তাল শাঁসের রয়েছে স্বাস্থ্যগুণ। তালের শাঁস শরীরের জন্য খুবই উপকারী একটি ফল। গরমের দিনে তালের শাঁসে থাকা জলীয় অংশ পানি শূন্যতা দূর করে। এছাড়া এতে ক্যালসিয়াম, ভিটামিন সি, এ, বি কমপ্লেক্সসহ নানা ধরনের ভিটামিন রয়েছে। তালে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। কচি তালের শাস রক্তশূন্যতা দূর করে চোখের দৃষ্টি শক্তি ও মুখের রুচি বাড়ায়। 

মন্তব্য লিখুন :