ভোলাহাটে লকডাউনে প্রশাসনের কঠোর অবস্থান

করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসক ঘোষিত বিশেষ লকডাউনে ভোলাহাট উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসনের কঠোর নজরদারি লক্ষ করা গিয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায় মেডিকেল মোড়, উপজেলা গেট, ইমামনগর বাজার, ফুটানিবাজার, মুশরিভূজা বাজার, দলদলী বাজার, বৃহত্তর বজরাটেক, বড়গাচ্ছি বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় পুলিশ চেক পোস্ট বসিয়ে তল্লাশি অব্যাহত রেখেছে। জরুরী পণ্যসামগ্রী, ওষুধ পরিবহন, কাঁচা মালামাল পরিবহন ছাড়া সকল প্রকার পরিবহন বন্ধ করতে দেখা গেছে। এছাড়া বিভিন্ন বাজারে কাচা মালামাল বিক্রি, মুদিদোকান, ওষুধের দোকান স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুলে রাখতে দেখা গেছে। 

অযথা যারা ঘোরাফেরার জন্য রিক্সা-ভ্যান নিয়ে বের হয়েছেন তাদের সর্তক করতে চাকার হাওয়া ছেড়ে দিচ্ছেন পুলিশ।

পোল্লাডাঙ্গা হাটের মোঃ গরিবুল, মোঃ এহসান, মোঃ আলমসহ বেশ কয়েকজন বলেন, দেশের সব থেকে বেশি করোনা আক্রান্ত চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা। তার পরেও কেউ মাস্ক পরছেন না, স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না। প্রশাসন থেকে সাপ্তাহিক হাট বন্ধ রাখার ঘোষণা দিলেও অনেকেই মানছেন না।

ভোলাহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ মাহবুবুর রহমান জানান, কঠোর লকডাউন বাস্তবায়ন করার লক্ষে ভোলাহাট উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় পুলিশি অভিযান অব্যাহত আছে। মোড়ে মোড়ে পুলিশি চেক পোষ্ট বসিয়ে অপ্রয়োজনে যারা চলাফেরা করছে তাদের কাজ ছাড়া বাড়ি থেকে বাইরে বের না হওয়ার অনুরোধ করেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (অঃ চাঃ) মোঃ শেখ মেহেদী ইসলাম বলেন, কঠোর লকডাউন সফল করতে ভোলাহাটের বিভিন্ন জায়গায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হচ্ছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসন থেকে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এসেছেন। এখন পর্যন্ত লকডাউন লঙ্ঘনকারী প্রায় ৮-১০ জনকে আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে। সে সাথে মাস্ক পরা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ করা হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার মোঃ আব্দুল হামিদ জানান, ভোলাহটে এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্ত ৮১ জন, মারা গেছে ২ জন, সুস্থ হয়েছেন ৭৪ জন, নতুন আক্রান্ত ১ জন, বর্তমানে চিকিৎসাধীন ৫ জন ।

তিনি আরও বলেন, সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ করেন।

উল্লেখ্য, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসক ঘোষিত বিশেষ লকডাউন ২৫ মে থেকে ৩১ মে পর্যন্ত চলমান থাকবে।

মন্তব্য লিখুন :