যৌতুকের টাকা না পেয়ে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

লক্ষ্মীপুরে যৌতুকের টাকার জন্য শাহিনুর আক্তার শানু নামে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

মঙ্গলবার (১ জুন) রাতে লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের উত্তর বাঞ্চানগর এলাকায় শ্বশুরবাড়িতে শাহিনুর আক্তার শানুকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করা হয়। ঘটনার পর থেকে স্বামী মোঃ হান্নান ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন পলাতক রয়েছেন। লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান তিনি।

নিহত শাহিনুরের পরিবার জানায়, ৫ বছর আগে উত্তর বাঞ্চানগর এলাকার খোরশেদ আলমের ছেলে সিএনজিচলিত অটোরিকশা চালক হান্নানের সঙ্গে শাহিনুরের বিয়ে হয়। শাহিনুর একি এলাকার দুলাল মিয়ার মেয়ে। সম্প্রতি বিদেশ যাওয়ার জন্য শ্বশুরবাড়ি থেকে হান্নান ও তার পরিবার এক লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় ঘটনার রাতে শাহিনুর ও হান্নানের মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়।

এক পর্যায়ে হান্নান তাকে মারধর ও শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা চালান। এতে শাহিনুর অচেতন হয়ে পড়েন। পরে মৃত ভেবে শাহিনুরকে ফেলে রেখে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন পালিয়ে যায়। সাড়া শব্দ না পেয়ে প্রতিবেশীরা ঘরে ঢুকে আহত অবস্থায় শাহিনুরকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। শুক্রবার সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শাহিনুর মারা যায়।

হাসপাতালে নিহত শাহিনুরের বাবা দুলাল মিয়া ও চাচাতো ভাই জামাল হোসেন বলেন, হান্নান বিদেশ যাওয়ার জন্য এক লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেছে। অসচ্ছলতার কারণে তাকে টাকা দিতে অপারগতা জানানো হয়। এ ঘটনায় স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। হত্যার সঙ্গে জড়িতদের বিচার দাবি করেন তারা।

সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আনোয়ার হোসেন জানান, শাহিনুরকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। গলায়ও আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শাহিনুর মারা গেছেন।

এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর শহর পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) আব্দুল মতিন বলেন, নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

মন্তব্য লিখুন :