এগিয়ে আসেনি স্বজনরা, হিন্দু ব্যক্তির সৎকার করল মুসলিমরা

করোনাভাইরাসে পুরো পৃথিবীর মানুষকে করেছে ঘরবন্দি আর স্বার্থপর। মানুষ মারা গেলেও এগিয়ে আসছে না স্বজনরা। ঠিক সেই সময়ে দেশে ও দেশের বিভিন্ন স্থানে মানুষের শেষ কাজ সম্পন্ন করতে দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে।

কোথাও কোথাও হিন্দুদের শেষ কাজ সম্পন্ন করতে দেখা যাচ্ছে অনেক মুসলিম যুবকদের। ঠিক তেমনই ঘটনা ঘটেছে শুক্রবার (১১ জুলাই) সাতক্ষীরার শ্যামনগরে।

বৃহস্পতিবার (১০ জুন) সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার গৌরিপুর গ্রামের বিধান চন্দ্র মণ্ডল (৩৭) করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান। কিন্তু তার আপনজনরা তার মরদেহ ফেলে রেখে চলে যায়। পরে বিষয়টি জানানো হয় স্থানীয় এক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে। সংগঠনের কর্মীরা এসে ঐ ব্যক্তির সৎকারে অংশ নেন।

এ বিষয়ে সিডিও’র প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক গাজী আল ইমরান জানান, শুক্রবার (১১ জুন) ভোরবেলা ঘুম থেকে ওঠার আগেই একটি অজানা নাম্বার থেকে ফোন আসে। ফোনে এক হিন্দু যুবক জানালেন বিধান চন্দ্র মণ্ডল বৃহস্পতিবার মারা গেলেও এখনো তার সৎকার হয়নি। বিষয়টি নিয়ে আমি সংগঠনের কর্মীদের সাথে আলাপ করি।

তিনি আরও বলেন, সৎকার কাজের জন্য সংগঠনের হাফিজ, মিলন এবং জামাল বাদশা আগ্রহ প্রকাশ করেন। সৎকার কাজে গিয়ে দেখি বিধানের বাড়িতে তার স্ত্রী ছাড়া আর কেউ নেই। বিধান যেখানে মারা গিয়েছিল, ঠিক সেখানেই পড়ে আছে। দীর্ঘ ১৫ ঘন্টা পার হলেও বিধানকে কেউ স্পর্শও করেনি। আমরা সিডিও ইয়ুথ টিমের পক্ষ থেকে তার সৎকারের ব্যবস্থা করি। একই সাথে তার বাড়িটি লকডাউনে অংশ গ্রহণ করি।

মন্তব্য লিখুন :