গুইমারায় দুর্বিত্তের হামলায় মহিলা সহ ৭ জন গুরুতর আহত

খাগড়াছড়ি জেলার গুইমারা উপজেলার বড়পিলাক এলাকায় জমি বিরোধের জের ধরে একই পরিবারের ৭ জন কে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে এবং দা দিয়ে কুপিয়ে যখম করেছে দুর্বৃত্তরা

শনিবার  (১২ জুন) আনুমানিক সাড়ে তিন ঘটিকায় নজরুল ইসলামের সৃজনকৃত আম বাগান থেকে আজাহার গং’রা আম পেড়ে নিয়ে যেতে এলে তাদের নিষেধ করলে তারা নজরুল ইসলামের উপর চড়াও হয়। বাক-বিতান্ডের এক পর্যায়ে আজাহার গং'রা লাঠি সুটা এবং ধারালো অস্র নিয়ে আক্রমন করে এবং নজরুল ইসলাম সহ তার স্ত্রী মুসলেমা বেগম, ছেলে জহিরুল ইসলাম, মেয়ে মমেনা বেগম, ছেলের বৌ শারমিন আক্তার সহ জরিনা বেগম কে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে এবং কুপিয়ে মারাত্নক যখম করে  হামলাকারীরা বর্তমানে গা ঢাকা দিয়েছে।

আহতরা মাটিরাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি হলে আহত ব্যাক্তিদের মধ্যে ২ জনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত ডাক্তার তাদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করেন।

বড়পিলাকে বসবাসরত নজরুল ইসলাম (৪৫) এর পরিবারের সাথে আজাহার মিয়ার পরিবারের জমি নিয়ে বিরোধ চলছে প্রায় ৯ বছর ধরে। নজরুল ইসলামের ফলদ বাগানের প্রায় ২ একর জমি জোর দখলে আছে আজাহার গং’রা । জমি বিরোধ নিয়ে ৫টি মামলা দায়ের করলেও ৪টি মামলাতেই নজরুল ইসলামের পক্ষে রায় আসে এবং ১টি মামলা চলমান। কিন্তু আদালতের রায়ের তোয়াক্কা না করেই জমি জোর দখলে আছে আজাহার গং'রা।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী আব্দুর রহিম জানান, আজাহার, জাকির হোসেন, আমির হোসেন, শুকুর আলী, আজাহারের স্ত্রী আমেনা খাতুন, আমির হোসেনের স্ত্রী সহ অনেকেই অতর্কিত ভাবে আক্রমন করে এবং নজরুল ইসলামের পরিবারের সবাইকে মারধর করে যখম করে।

এই বিষয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের জানালে তারা জমি এবং আম পাড়া কে কেন্দ্র করে অতর্কিত হামলার ব্যাপারে জানেন কিনা জানতে চাইলে  গুইমারা থানার অফিসার ইনচার্জের মোঃ মিজানুর রহমান বলেন, ঘটনার পরক্ষনে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এবং তথ্যাদি সংগ্রহ করেন। আহতদের চিকিৎসার পরামর্শ দেন এবং আহত ব্যাক্তিরা থানায় অভিযোগ করলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যাবস্থা নিবে বলে জানান।


মন্তব্য লিখুন :