পাবনায় গণপূর্ত ভবনে অস্ত্রের মহড়া

পাবনা গণপূর্ত ভবনে সম্প্রতি অস্ত্রের মহড়া দেওয়ার যে ঘটনা ঘটেছে, যা জেলাজুড়ে ব্যাপক সমালোচনা সৃষ্টি করেছে। তাছাড়া সামাজিক মাধ্যমে ওই ঘটনার ভিডিও গোটা দেশে ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় আওয়ামীলীগের দুই নেতাকে দল থেকে অব্যাহতি এবং এক যুবলীগ নেতাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। একই সঙ্গে স্থায়ী বহিষ্কার কেন করা হবে না- তা জানতে চেয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (১৬ জুন) পাবনা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপির স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এই সিদ্ধান্ত জানিয়ে সংশ্লিষ্টদের নোটিশ দেওয়া হয়। তাছাড়া নোটিশের অনুলিপি দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকেও দেওয়া হয়েছে।

অব্যাহতি পাওয়া দুই আওয়ামীলীগ নেতা হলেন, পৌর আওয়ামীলীগের স্থগিত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মহসীন রেজা খান মামুন (এম আর খান মামুন) এবং সদর উপজেলার স্থগিত কমিটির বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ ফারুক হোসেন ওরফে হাজী ফারুক। এ ছাড়া তাদের কেন দলের সকল পদ থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হবে না- তার কারণ দর্শানোর জন্য নোটিশে ১৫ দিনের সময় দেওয়া হয়েছে।

অপরদিকে, পাবনা জেলা যুবলীগ একই ঘটনায় বুধবার জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য শেখ আনোয়ার হোসেন ওরফে শেখ লালুকে যুবলীগ থেকে বহিষ্কারের সুপারিশ করেছে। জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক আলী মুর্তজা বিশ্বাস সনি জানিয়েছেন বুধবার তার বহিষ্কারের সুপারিশ কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রেজাউল রহিম লাল এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপির সঙ্গে কয়েকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তাদের মোবাইল বন্ধ পাওয়ায় যোগাযোগ সম্ভব হয়নি। এছাড়া রাজশাহীর বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামালের সঙ্গে যোগাযোগ করতে তার ফোনে কল দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।

জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ মনির উদ্দিন আহমেদ মান্না বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপি স্বাক্ষরিত চিঠি শোকজপ্রাপ্ত দুই জনের বাড়ি পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে চিঠির কপি হোয়াটসঅ্যাপ ও কুরিয়ারের মাধ্যমে দলের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়ার কাছে পাঠানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ৬ জুন দুপুরে উল্লিখিত তিন আওয়ামীলীগ ও যুবলীগ নেতার নেতৃত্বে প্রায় ২৫ থেকে ৩০ জনের একটি দল একাধিক আগ্নেয়াস্ত্র হাতে নিয়ে পাবনা গণপূর্ত ভবনে যান। ওই সময় তারা নির্বাহী প্রকৌশলী আনোয়ারুল আজিমকে খুঁজতে থাকেন বিভিন্ন কক্ষে প্রবেশ করে। এ ঘটনার সিসিটিভি ফুটেজ সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তা ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি করে।

মন্তব্য লিখুন :