মোংলা বন্দর 'সিবিএ'র সাবেক নেতা পল্টুর বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

দুর্নীতি, অনিয়ম, অসদাচরণ ও পলায়নের দায়ে মোংলা বন্দরের সিবিএ’র সাবেক এক প্রভাবশালী নেতাকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করতে শোকজ করা হয়েছে। ওই নেতা কাজী খুরশীদ আলম পল্টু বন্দরের হারবার বিভাগের শিপ মুভমেন্ট এ্যাসিস্ট্যান্ট পদে কর্মরত রয়েছেন।

গত ৯ জুন মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ কর্মচারী চাকরি প্রবিধানমালা ১৯৯১ এর ৩৯ (খ) ৩৯ (গ) বিধান অনুযায়ী বন্দর কর্তৃপক্ষের পরিচালক (প্রশাসন) মোঃ শাহীনুর আলম স্বাক্ষরিত এই শোকজ আদেশ প্রেরণ করেন।

শোকজ আদেশের বিষয়টি অভিযুক্ত কাজী খুরশীদ আলম পল্টু স্বীকার করে বলেন, তিনি গত ১৭ জুন এ আদেশ কপি হাতে পেয়েছেন।

এ বিষয়ে আত্মপক্ষ সমর্থনে ব্যক্তিগত শুনানিতে অংশ নিবেন বলেও জানান তিনি।

বন্দর কর্তৃপক্ষের প্রশাসন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, হারবার বিভাগের শিপ মুভমেন্ট এ্যাসিস্ট্যান্ট ও সিবিএ'র সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাজী খুরশীদ আলম পল্টু (আইসি নম্বর-২৬৩৩) বন্দর কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়ে ২০১২ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর তার্কিশ এয়ারলাইন্সের টি,কে ০৭১৩ ফ্লাইটযোগে ইতালি যান। পরবর্তীতে চার মাস ২৯ দিন সেখানে অবস্থানের পর ২০১৩ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি তিনি দেশে ফিরে আসেন। বিদেশে অবস্থানের বিষয়টি গোপন রেখে আবারো চাকরিতে যোগদানের বিষয়টি বন্দর কর্তৃপক্ষের নজরে আসলে তাকে চাকরি বিধিমালায় পলায়ন শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গণ্য করে কর্তৃপক্ষ।

এছাড়া নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে বন্দর কর্তৃপক্ষের গঠিত তদন্ত কমিটি পল্টুর আত্মীয় আসমা সুলতানার নামে বন্দর কর্তৃপক্ষের স্মৃতিস্তম্ভের পিছনে ৮৩ দশমিক ৬৫ বর্গমিটার জমি বরাদ্দ নেয়ার বিষয়েও ভূমি বরাদ্দ নীতিমালা ১৯৯৭ এর ধারায় লঙ্ঘনের প্রমাণ পায়।

সিবিএর সাধারণ সম্পাদক থাকাকালীন পল্টুর বিরুদ্ধে ২০১৮ সালে খুলনাস্থ নৌ বাহিনী স্কুল এন্ড কলেজে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের নিয়োগ পরীক্ষা চলাকালে দলবলসহ সেই স্কুলে হামলা চালানো এবং তৎকালীন চেয়ারম্যানসহ সেখানে উপস্থিত ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করায় অসদাচরণের অভিযোগেরও প্রমাণ মেলে। এ ঘটনায় পল্টুর বিরুদ্ধে একটি মামলা চলমান রয়েছে।

কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে গোপনে বিদেশ যাত্রা, দুর্নীতি ও হামলা এবং কর্মকর্তাদের গালিগালাজের দায়ে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে হারবার বিভাগের শিপ মুভমেন্ট এ্যাসিস্ট্যান্ট কাজী খুরশীদ আলম পল্টুকে অভিযুক্ত করা হয় জানিয়ে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের পরিচালক (প্রশাসন) মোঃ শাহীনুর আলম শনিবার (১৯ জুন) বলেন, বন্দরের প্রবিধানমালার বিধান মোতাবেক তাকে চাকরি থেকে কেন বরখাস্ত করা হবে না তা জানতে শোকজ করা হয়েছে। দশ কার্য দিবসের মধ্যে (শুক্র ও শনিবার) ব্যতীত এই শোকজের জবাব চাওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, কাজী খুরশীদ আলম পল্টু তার আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানিতে জবাব দিতে পারবেন, তবে জবাব সন্তোষজনক না হলে গঠিত নতুন কমিটির তদন্তের প্রতিবেদনের আলোকে তাকে বরখাস্ত করা হবে।

মন্তব্য লিখুন :