পটুয়াখালীতে জমি নিয়ে বিরোধে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে ৩ জন

পটুয়াখালীর গলাচিপায় জমি নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিবন্ধী বড় ভাই মজিদ খলিফা ও তার ছেলে সাইদুল খলিফাসহ ৫ জনকে দেশীয় অস্ত্র ও লাঠি-সোঠা দিয়ে পিটিয়ে জখম করেছে তারই আপন ভাই হানিফ খলিফা ও তার ছেলে হাসিব খলিফা এবং ভাতিজা রাসেল খলিফা।

ঘটনার পর আহত দুই জনকে গলাচিপা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে এবং গুরুতর আহত তিন জনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। আহত তিনজন বর্তমানে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। এ ব্যাপারে গলাচিপায় থানায় একটা মামলা দায়ের করা হয়েছে যার মামলা নং ১৮/২১।

গলাচিপা থানার ওসি শওকত আনোয়ার জানিয়েছেন, জমি নিয়ে মারামারির ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলার আসামী হাছিব খালিফা বৃহস্পতিবার সকালে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয় মানুষ দেখে আমাদের খবর দিয়েছে। আমরা তাকে গ্রেফতার করে গলাচিপা থানায় নিয়ে আসি এবং পরবর্তীতে তাকে জেল হাজতে পাঠিয়েছি। বাকি দুইজন আসামী গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, গোলাম মোস্তফা খলিফা, মজিদ খলিফা ও হানিফ খলিফা ওয়ারিশ সূত্রে কলেজ পাড়া বনানী সড়কে জমি পেয়েছেন যা অনেকদিন তারা ভোগদখল করেছে। উক্ত জমির মালিকানা ও দখল নিয়ে তাদের ছোট ভাই হানিফ খলিফার মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে থানায় ও স্থানীয় পর্যায়ে কয়েক দফা শালিস বৈঠক হয়। ঘটনার দিন বুধবার (২৩ জুন) জমি সম্পূর্ন দখলে নিতে চায়  হানিফ খলিফা। এসময় অন্যান্য দখলদার এবং ওয়ারিশরা বাধা প্রদান করলে প্রতিবন্ধি এবং বৃদ্ধসহ পাঁচজনকে লাঠি ও রড দিয়ে আঘাত করে হানিফ খলিফা। পরবর্তীতে হামলার ব্যাপারে জানার জন্য হানিফ খলিফার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তার ব্যক্তিগত মুঠোফোনে সংযোগ পাওয়া যায়নি।

বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক সুজিত কুমার হালদার (শনিবার, ২৬ জুন) বলেছেন, গত বুধবার পটুয়াখালী থেকে তিন জন রোগী এখানে ভর্তি হয়েছে। তিনজনের অবস্থাই গুরুতর। বৃদ্ধ ব্যক্তির জ্ঞান এখনও ফেরেনি। মোস্তফা খলিফা নামে রোগীর হাত ভেঙ্গে গেছে এবং সাইদুল খলিফার মাথায় আঘাত পাওয়ায় রক্তক্ষরণ হয়েছে প্রচুর। মজিদ খলিফার জ্ঞান ফিরতে সময় লাগবে বলে জানান তিনি।

মন্তব্য লিখুন :