আদমদীঘিতে কঠোরভাবে লকডাউন পালিত

সোমবার (২৮ জুন) ভোর ৬টা থেকে ১লা জুলাই ভোর ৬টা পর্যন্ত সাড়া দেশব্যাপি মহামারী করোনার প্রাদুর্ভাব বিস্তার করায় স্বল্প পরিসরে লকডাউন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে সরকারি এক আদেশ জারী করার পরিপেক্ষিতে আদমদিঘী  উপজেলার সকল ইউনিয়ন ও পৌর এলাকার সকাল থেকে এপর্যন্ত কোন শপিংমল বা মার্কেটের, দোকানপাট  খুলতে দেখা যায়নি।

বিভন্ন সড়কের প্রবেশদ্বারে বাঁশ দিয়ে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সড়ক-মহাসড়কে কোন যানবাহন চলাচল করতে দেয়া হয়নি তবে জরুরী কাজে নিয়োজিত ও রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স এর আওতায় বহিভূত্ত ছিল করোনা ভাইরাসজনিত রোগ (কোভিড-১৯) এর বিস্তার রোধকল্পে সার্বিক কার্যাবলী চলাচলে বিধিনিষেধ আদেশ জারী করেছে আদমদীঘি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় থেকে। রবিবার (২৭ জুন) উপজেলা নির্বাহী অফিসার সীমা শারমিন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তি জারী করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনা ভাইরাসজনিত রোগ (কোভিড-১৯) সংক্রমণের হার বৃদ্ধি পাওয়ায় জেলা ও উপজেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ সংক্রান্ত কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সৃষ্ট পরিস্থিতি মোকাবেলায় অদ্য (২৭ জুন) রাত ১২.০১ ঘটিকা হতে জাতীয়ভাবে লক/শাট ডাউন ঘোষণার পূর্ব পর্যন্ত আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহার পৌরসভায় সর্বাত্মক কঠোর বিধি-নিষেধ আরোপ করার কথা বলা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, লক/শাট ডাউন চলাকালীন সকল ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, শপিংমল, মার্কেট, দোকান বন্ধ থাকবে। তবে ঔষধ, কাঁচাবাজার, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদী, চিকিৎসাসেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকারের লক্ষ্যে জড়িত প্রতিষ্ঠান এর আওতা বহির্ভূত থাকবে। সান্তাহার পৌর এলাকায় সর্বাত্মক লকডাউন কঠোরভাবে পালনের জন্য পুলিশের পাশাপাশি জনপ্রতিনিধি সান্তাহার পৌরসভা কর্মচারীবৃন্দ ও বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা কাজ করে আসছে। এ বিষয়ে সান্তাহার পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ আরিফুল ইসলাম জানান সান্তাহার পৌর এলাকায় সর্বাত্মক লকডাউন কঠোরভাবে পালনের জন্য তারা সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কাজ করে আসছে এবং আগামী দিনেও এই লকডাউন সান্তাহার  পৌর এলাকায় কঠোরভাবে পালন করা হবে।

মন্তব্য লিখুন :