উজিরপুরে মা ও ছেলেকে কুপিয়ে জখম

বরিশালের উজিরপুরে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে মা ও ছেলেকে হত্যার উদ্দেশ্যে উপর্যুপরি ভাবে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করেছে প্রতিপক্ষ প্রভাবশালীরা।

হামলার ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। আহত ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বড়াকোঠা ইউনিয়নের গাজিরপাড় গ্রামের শাহ আলম বেপারী (৫৫) গংদের সাথে একই গ্রামের আঃ করিম বেপারী (৪০) গংদের জমি-নিয়ে ২ বছর ধরে বিরোধ চলে আসছে।

এরই ধারাবাহিকতায় ১৪ জুলাই বেলা সাড়ে ১০ টায় শাহ আলম বেপারীর ছেলে সোয়াইব আহম্মেদ(১৬) প্রাইভেট শেষে বাড়ী ফেরার পথে করিম বেপারীর বাড়ীর সম্মুখে পৌছলে পরিকল্পিত ভাবে আব্দুল করিম বেপারী(৪০), সিরাজুল ইসলাম বেপারী(৬০), নান্না রাড়ী(৫০), নজরুল ইসলাম রাড়ী(৩৫), আক্কেল রাড়ী(৫০), তোতা রাড়ী(৫৫), হেলাল বেপারী(৫৫), খলিল হোসেন রাড়ী(৪৪) সহ ১০/১৫ ভাড়াটিয়া লোকজন মিলে ওই ছাত্রকে হত্যার উদ্দেশ্যে কুপিয়ে রক্তাক্ত যখম করেছে এবং ৩ হাজার টাকা মুল্যের মোবাইলসেট ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

এসময় ডাকচিৎকার শুনে তার মাতা মোসাঃ সামছুন্নাহার বেগম(৪৫) ঘটনাস্থল ছুটে এসে প্রতিবাদ করলে তাকেও হত্যার উদ্দেশ্যে কুপিয়ে জখম করে এবং শ্লীলতাহানি করে পরিহিত ৭২ হাজার টাকা মুল্যের স্বর্নের চেইন ছিনিয়ে নিয়ে পরবর্তীতিতে প্রানে মেরে ফেলার হুমকী দিয়ে চলে যায়।

স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে উজিরপুর হাসপাতালে ভর্তি করে। এই ঘটনায় শাহ আলম বেপারী বাদী হয়ে উল্লেখ্য অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে উজিরপুর মডেল থানায় ঘটনার দিন অভিযোগ দায়ের করেন।

আহত গৃহবধুর স্বামী শাহ আলম বেপারী জানান, আমরা এলাকার জনসাধারনরা মিলে একটি ধর্মীয় সামাজিক প্রতিষ্ঠান কওমী মাদ্রাসা স্থাপন করার ইচ্ছা পোষন করলে প্রতিপক্ষরা বিভিন্ন ভাবে বাধাঁ প্রদান করে থাকে।

এরই জের ধরে ওই সন্ত্রাসীরা দেশীয় অস্ত্র সাজে সজ্জিত হয়ে আমার নাবালক সন্তান ও স্ত্রীকে পরিকল্পিত ভাবে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায় এবং বিভিন্ন ভয়ভীতি ও হুমকী দিয়ে থাকে।

বর্তমানে হুমকীর মুখে পরিবারের সকল সদস্যদের নিয়ে আতঙ্কে রয়েছি। অভিযুক্তদের পাওয়া যায়নি।

উজিরপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আলী আর্শাদ জানান, অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

ওই হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবী জানিয়ে প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করেন আহতের পরিবার।

মন্তব্য লিখুন :