সুদী প্রতিষ্ঠানের ঋণে অন্ধকার কক্ষে আটক দিনমজুর

লক্ষ্মীপুরে ঋণের টাকা পরিশোধ করতে না পারায় আবদুল করিম নামে এক দিনমজুরকে সুদী প্রতিষ্ঠানের মালিক অন্ধকার কক্ষে আটকে রেখেছেন।

সোমবার (১৬ আগস্ট) দুপুরে ৯৯৯ এ কল পেয়ে আল-আকসা সঞ্চয় ঋণদান সমবায় সমিতি লিমিটেড কার্যালয়ের সদর থানা পুলিশ গিয়ে তাকে উদ্ধার করেন। এসময় সমিতির পরিচালক পারভেজ হোসেন নামে এক ব্যক্তিকেও পুলিশ আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

এর আগে রোববার (১৫ আগস্ট) রাতে সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জ বাজারের একটি কক্ষে রাতভর করিমকে আটকে রাখা হয়। সোমবার সন্ধ্যায় করিমের স্ত্রী রৌশন আক্তার গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, করিম ভবানীগঞ্জ গ্রামের মৃত নুর আলমের ছেলে ও পারভেজ একই গ্রামের তসলিম আহমেদের ছেলে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, প্রায় দুই বছর আগে করিম ওই সমিতি থেকে সাপ্তাহিক কিস্তিতে সুদে এক লাখ ২০ হাজার টাকা ঋণ নেয়। প্রথম তিন কিস্তিতে ঋণের ৩৮ হাজার ৫০০ টাকা পরিশোধ করা হয়। করোকালীন লকডাউনে করিমের কাজকর্ম কমে যায়। এতে সংসারে অভাব অনটন দেখা দিলে ঋণের টাকা পরিশোধ সম্ভব হয়নি।

এরমধ্যেই টাকা পরিশোধের জন্য পারভেজ বিভিন্নভাবে চাপ দেয়। রোববার রাতে পারভেজ তার অফিসে করিমকে ডেকে নেয়। পরে তাকে অফিসের একটি কক্ষে আটকে রাখে। বিষয়টি করিমের স্ত্রী রৌশন আক্তার জানতে পেরে সোমবার ৯৯৯ এ ফোন দিয়ে পুলিশকে ঘটনাটি জানায়। সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পৌঁছে বন্দি কক্ষ থেকে করিমকে উদ্ধার ও সমিতির পরিচালক পারভেজকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

রৌশন আক্তার বলেন, আমার তিন সন্তান। করিম চা দোকানের কর্মচারী। অভাবের সংসারে খুব কষ্টে দিন পার করছি। সংসারের অবস্থা খুবই করুন। এরমধ্যে আমার স্বামীকে রাতভর আটকে রেখে পারভেজ মানসিক নির্যাতন করেছে।

এ ব্যাপারে সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নুর নবী বলেন, ৯৯৯ এ অভিযোগের ভিত্তিতে করিমকে বন্ধ কক্ষ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। সমিতির পরিচালককেও থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। দু’পক্ষকে নিয়ে বসে আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টি মিমাংসা করা হবে।

মন্তব্য লিখুন :