বেদখল জমি ফিরে পেতে সখিপুরে সংবাদ সম্মেলন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার

টাঙ্গাইলের সখিপুর উপজেলার কালিয়া ইউনিয়নের যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ইউসুফ আলীর বাপ-দাদার বসতভিটা সহ ৮.৪১ শতাংশ সম্পত্তি ২০০৮ সালে জবর দখল করে নিয়েছে দুর্বৃত্তরা।

স্থানীয় মাতব্বর, মেম্বার চেয়ারম্যান সহ বিভিন্ন দারে দারে ঘুরেছেন, ১২ বছরে পাননি কোনো সুরাহা।

অবশেষে বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) সখিপুর রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ে এসে সংবাদ সম্মেলন করেন বয়সের ভারে ন্যুব্জ ১৯৭১সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি হানাদারের বুলেটে আহত মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ইউসুফ আলী ও তার পরিবারের সদস্যরা।

যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ইউসুফ আলী ও তার পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন তার ছেলে মােঃ ফরিদ। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমি পৈতৃক সূত্রে ৮.৪১ একর  জমি প্রাপ্ত হইয়া মালিক ও দখলকার থাকাবস্থায়, এলাকার কিছু দাঙ্গাবাজ, সন্ত্রাসী ও দখলবাজ লােক ১। আঃ মান্নান পিতাঃ মৃত- মালেক মুন্সি, ২। মােঃ মােস্তফা, পিতাঃ মৃত-মালেক মুন্সি, ৩। মােঃ মজিবর, পিতাঃ মৃত- মতিয়ার রহমান, ৪। আজাহার, পিতাঃ মৃত- মিজানুর রহমান, ৫। আলমগীর, পিতাঃ মৃত-মিজানুর রহমান, ৬। কায়সার, পিতাঃ মৃত-মফিজ উদ্দিন লাল মিয়া, সর্ব সাং-আড়াইপাড়া, সখিপুর, টাঙ্গাইল। এরা ২০০৮ সালে জোর জবরদস্তি করিয়া আমার ৮.৪১ একর জমিজমা ও বাড়ী দখল করিয়া নেয়। উক্ত বিষয়ে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ মেম্বার চেয়ারম্যানের শরনাপন্ন হয়েও কোথাও কোন সহযােগীতা পাই নাই। উক্ত জমিতে আমিসহ আমার অন্যান্য শরীকগণ ভােগদখলের চেষ্টা করিলে তারা আমাদের উপর আক্রমণ করতে আসে এবং সেই সাথে আমার যুদ্ধাহত বৃদ্ধ পিতাকেও তারা অপমান অপদস্তসহ মারপিট করতে আসে এবং প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে।

এমতবস্থায় আমি এবং আমার পিতার জীবন হুমকির মুখে পড়ে আছে, যে কোন সময় তারা যে কোন ধরনের ঘটনার সৃষ্টি করতে পারে বলে আমি আশংকা প্রকাশ করছি। এই ভাবে উক্ত জমিজমা বেদখল হওয়ায় আমরা আর্থিক ভাবে চরম ক্ষতির মুখে পড়ে আছি। এ ব্যাপারে আমি ন্যায় বিচারের আশায় গত ০৫/০৯/২০২১ইং তারিখে উপজেলা চেয়ারম্যান, সখিপুর উপজেলা পরিষদ বরাবর একটি আবেদন দাখিল করেছি। গত ১৫/০৯/২০২১ইং তারিখে জেলা প্রশাসক, টাঙ্গাইল বরাবর একটি আবেদন দাখিল করেছি এবং গত ১৬/০৯/২০২১ইং তারিখে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সখিপুর উপজেলা এর বরাবর আরো একটি আবেদন দাখিল করেছি। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো দিক থেকে কোনো প্রকার কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

এমতাবস্থায় আমি ও আমার পরিবার পরিজন সহ আমার আহত মুক্তিযোদ্ধা পিতা কে নিয়ে ভীষণ দুর্বিষহ জীবনযাপন করিতেছি। যাহাতে আমি আমার ন্যায্য পাওনা দুর্বৃত্তদের কবল থেকে উদ্ধার পূর্বক সুবিচার পাই তারই উদ্দেশ্যে আপনাদের মাধ্যমে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মানবতার জননী জননেত্রী শেখ হাসিনার সুদৃষ্টি ও একান্ত হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

সংবাদ সম্মেলনে এসময় সখিপুর রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি মোহাম্মদ শরিফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামালসহ সখিপুর রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য লিখুন :