বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মাদ্রাসার ছাত্রী ধর্ষণ

চাঁদপুর জেলার মতলব দক্ষিণ উপজেলার নারায়ণপুরের এক মাদ্রসা ছাত্রী (১৪) কে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে মিজান ওরফে রাসেল নামের এক যুবক।

মিজান ওরফে রাসেলের বাড়ি জামালপুরের বকশিগঞ্জ উপজেলার নিলক্ষ্মীয়া গ্রামে। তার পিতার নাম ফরহাদ হোসেনে।

মিজান ওরফে রাসেল চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ উপজেলার পালাখাল এলাকায় একটি গ্যারেজে শ্রমিক হিসাবে কাজ করে।

পুলিশ ও ছাত্রীর পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ওই ছাত্রীর ভাবীর মুঠোফোনের মাধ্যমে ছাত্রীটির সঙ্গে মিজানের পরিচয় হয়। একপর্যায়ে তাঁদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ও ঘনিষ্ঠতা তৈরি হয়।

ধর্ষণের শিকার ওই ছাত্রী স্থানীয় একটি মাদ্রাসার দশম শ্রেণিতে পড়ে। ঘটনার দিন গত ৯ সেপ্টেম্বর (বৃহস্পতিবার) ছাত্রী তার মাদ্রাসায় যায়। মিজান খবর দিয়ে ছাত্রীটিকে মাদ্রাসার ফটকের সামনে নিয়ে আসেন। পরে সেখান থেকে তাকে নিয়ে হাজীগঞ্জের পালাখাল এলাকায় (মিজান) তার বাসায় যায়। সেখানে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওই ছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ করে মিজান।

এ ঘটনায় শনিবার ছাত্রীর মা বাদী হয়ে মতলব দক্ষিণ থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে নারায়ণপুর এলাকা থেকে মিজান ওরফে রাসেলকে গ্রেপ্তার করে।

মতলব দক্ষিণ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ মহিউদ্দিন মিয়া জানান, এ ঘটনায় ছাত্রীর মা বাদী হয়ে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। পরে পুলিশ নারায়ণপুর এলাকা থেকে মিজান রাসেলকে গ্রেপ্তার করে। আসামিকে রোববার চাঁদপুর আদালতে পাঠানো হবে।

তিনি আরও জানান, ধর্ষণের শিকার হওয়া মাদ্রাসা ছাত্রীকে আজ দুপুরে চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়েছে। সেখানে তাঁর স্বাস্থ্য পরীক্ষা হবে।

মন্তব্য লিখুন :