শীতের আভাস, ব্যস্ততা বেড়েছে লেপ-তোষক কারিগরদের

শীতের আগমনী বার্তা এখন প্রকৃতির সর্বত্র। শরৎ পেরিয়ে হেমন্ত এখন প্রকৃতিতে।ভোরে ঘাসের ওপর শিশির আর সন্ধ্যায় হালকা শীতের আভাস নিয়ে হেমন্তের আগমন।দিনে গরম থাকলেও রাত নামতেই গায়ে হালকা শীতের অনুভূতি।

টাঙ্গাইলের সখিপুর উপজেলার বিভিন্ন লেপ-তোষকের দোকানে আগমনী শীতকে কেন্দ্র করে আগের তুলনায় অনেকটাই ব্যস্ত দেখা যাচ্ছে ।শীত থেকে রেহাই পেতে অনেকে আগেভাগেই লেপ-তোষকের দোকানে ভিড় জমাচ্ছে নতুন লেপ-তোষক তৈরি করতে এবং পুরনো লেপ-তোষক ঝেড়ে নতুন করতে। এতে লেপ-তোষকের কারিগররা অনেকটাই ব্যস্ত হয়ে পড়েছে।পরে ভিড় বাড়তে পারে এবং লেপ-তোষক বানানোর জন্য বেশি সময় অপেক্ষা করতে হতে পারে ভেবে আগে ভাগেই দোকানে ছুটছেন অনেকেই।দোকানগুলোতে কারিগরদের ব্যাস্ততা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে।

সখিপুর বাজারের বিভিন্ন লেপ-তোষকের দোকানে  সরেজমিনে দেখা যায়,শিমুল তুলা ও কাপাসি তুলা গুণগত মানের শীর্ষে তাই বেশি দাম এবং পাওয়া যায় না বললেই চলে তাই ফাইবার তুলা, ফোম তুলা ও গার্মেন্টস তুলাই বর্তমানে লেপ-তোষকের অন্যতম কাঁচামাল। মান ও প্রকারভেদে বর্তমানে সর্বনিম্ন ৫৫ টাকা থেকে শুরু করে প্রায় ৪০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে এসব তুলা। লেপ-তোষকের আকার-আকৃতি,কাপড় ও তুলার মান ও পরিমাণ অনুযায়ী দামের তারতম্য রয়েছে। প্রতিটি লেপের দাম সর্বনিম্ন একহাজার টাকা থেকে শুরু করে প্রায় তিন হাজার টাকা পর্যন্ত,একইভাবে প্রতিটি তোষকের দাম ৭০০ টাকা থেকে শুরু করে প্রায় সাড়ে তিন হাজার টাকা পর্যন্ত। এছাড়াও এই কারিগররা লেপ-কম্বলের কভার,জাজিম এবং বালিশ তৈরি ও বিক্রয় করে থাকেন।

উপজেলার সখিপুর আবাসিক মহিলা কলেজ সড়ক  এলাকার জাহিদ বেডিং ষ্টোরের মালিক ও লেপ-তোষকের কারিগর জাহিদুল ইসলাম জানান, আগের তুলনায় কাজের চাপ বেড়েছে। শীতের তিন মাস একটু বেশিই পরিশ্রম করতে হয়। শীত শুরুতেই বেশ কাজ পাচ্ছি। শীত বাড়ার সাথে সাথে আরও ব্যস্ততা বেড়ে যাবে। ক্রেতাদের সন্তুষ্টির লক্ষ্যে আমরা যত্ন সহকারে লেপ-তোষক তৈরি করে থাকি। সীমিত লাভে ব্যবসা করি।

উপজেলা সদরের সখিপুর আবাসিক মহিলা কলেজ সড়কে অবস্থিত দুই ভাই বেডিং ষ্টোরের মালিক ও লেপ-তোষকের কারিগর শহিদুল ইসলাম বলেন, কয়দিন আগেও এত ব্যস্ত ছিলাম না। এখন খাওয়া দাওয়ার সময়ও পাইনা। লেপ-তোষক তৈরি করতে আসা মানুষ একটু বাড়তি সময় দিতে চায় না। এসেই বানিয়ে নিয়ে যাওয়ার তাগিদ শুরু করে। ক্রেতাদের খুশি করতে যতটা সম্ভব ভালো কাজ করার চেষ্টা করি। খুবই সীমিত লাভে ব্যবসা করি। খেয়ে পরে বাঁচতে পারলেই খুশি।

লেপ-তোষক তৈরি করতে আসা উপজেলার কালিদাস গ্রামের ক্রেতা শামীম আল মামুন এর সাথে কথা বলে জানা যায়, সময় বাঁচাতে আগেভাগেই লেপ-তোষক তৈরি করে নিচ্ছে। এখনও পর্যন্ত আমার কাছে দাম সঠিক মনে হচ্ছে, শীত বাড়ার সাথে সাথে দাম বাড়ার সম্ভাবনা আছে। এখন কারিগরদের কাছ থেকে দ্রুত সময়ে চাহিদামত নিতে পারছি। আমি প্রায় ৫০০০ টাকার মধ্যে একটি লেপ, একটি তোশক, একটি লেপের কাভার ও দুটি বালিশ ক্রয় করেছি,তুলা, কাপড়, দাম এবং কাজের মানে আমি খুশি।

মন্তব্য লিখুন :