কুবি শিক্ষার্থীদের টিকা পাওয়া নিয়ে ধোঁয়াশা

"কুমিল্লায় তৃতীয় ধাপে গত ১৬ জুন ৩৩ হাজার ২০০ ডোজ সিনোভ্যাক ভ্যাকসিন এসেছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিনের দেওয়ার তালিকা আমাদের হাতে আসেনি। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের করোনার টিকা তালিকা হাতে পেলে আমরা দ্রুত তাদের জন্য টিকার ব্যবস্থা করবো। ফলে কবে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ভ্যাকসিন পাবে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।"কথাগুলো বলেছেন কুমিল্লার সিভিল সার্জন ডা. মোবারক হোসেন।

এদিকে করোনা ভ্যাকসিনের জন্য কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) ৫৩৮ জন শিক্ষার্থীর তালিকা বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) কাছে পাঠানো হয়েছে। তালিকা প্রেরণের প্রায় ৩ মাস পেরিয়ে গেলেও শিক্ষার্থীরা কবে নাগাদ টিকা পাবে সেই ধোঁয়াশা যেনো কাটছেই না।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার দপ্তর সূত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট শিক্ষার্থী রয়েছেন প্রায় সাত হাজার। গত ফেব্রুয়ারিতে আবাসিক হলের শিক্ষার্থীদের টিকার আওতায় আনার লক্ষ্যে শিক্ষার্থীদের তালিকা নেওয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজী নজরুল ইসলাম হলের ১৩৮ জন, শহীদ ধীরেন্দ্রেনাথ দত্ত হলের ১১৬ জন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের ১১৫ জন এবং নওয়াব ফয়জুন্নেছা চৌধুরাণী হলের ১৬৯ জনের তালিকা পাঠানো হয়েছে।

ভ্যাকসিন কার্যক্রমের অগ্রগতি জানার জন্য যোগাযোগ করা হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. মোঃ আবু তাহের বলেন, আমরা আবাসিক শিক্ষার্থীদের তালিকা ইউজিসিতে পাঠিয়ে দিয়েছি। তবে অনাবাসিক শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিনের তালিকা কবে করা হবে তা নিশ্চিত ভাবে বলতে পারছি না।

ইউজিসি সূত্রে জানা যায়, দেশের সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত ৩৮টি বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে করোনার টিকার জন্য এক লাখ তিন হাজার ১৫২ জন আবাসিক শিক্ষার্থীর তালিকা পাঠানো হয়েছে তাদের কাছে।

টিকা প্রাপ্তির এই তালিকায় রয়েছে, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৫ হাজার ২৫৪ জন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯ হাজার ১৩০, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০ হাজার একজন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আট হাজার ৬৩০ জন, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) এক হাজার ৯৮৭ জন, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের চার হাজার ৫০০ জন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০ হাজার ৬৬৯ জন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক হাজার ৫৫৩ জন, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৩৮ জন, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক হাজার ৯০ জন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক হাজার ৮৪৫ জন, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই হাজার ২১৪ জন, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন হাজার ৬৫৩ শিক্ষার্থীদের নাম রয়েছে।

মন্তব্য লিখুন :