কুবি অধ্যাপকের গবেষণা যুক্ত হবে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থীদের পাঠ্যসূচিতে

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. জি. এম মনিরুজ্জামানের গবেষণা ‘মধুসূদন ও দীনবন্ধু মিত্রের প্রহসনে সেকালের সমাজ’ শীর্ষক পাণ্ডুলিপি নির্বাচিত করে স্বীকৃতি দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)।

মঙ্গলবার (২৯ জুন) বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের ৬ষ্ঠ তলায় সভাকক্ষে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠিত হয়েছে।

অনুষ্ঠানের সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রিসার্চ সাপোর্ট এন্ড পাবলিকেশন ডিভিশনের পরিচালক মোঃ কামাল হোসেন। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কমিশনের রিসার্চ সাপোর্ট এন্ড পাবলিকেশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত সদস্য অধ্যাপক ড. মোঃ সাজ্জাদ হোসেন এবং বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের পক্ষ হতে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছেন ইউজিসি সচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. ফেরদৌস জামান। ইউজিসির রিসার্চ সাপোর্ট এন্ড পাবলিকেশনের নির্বাচিত এবং স্বীকৃত এই গবেষণাধর্মী পাণ্ডুলিপিটি বাংলাদেশের স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থীদের পাঠ্যসূচির পাঠ্যবই হিসেবে প্রকাশ করা হবে বলে জানান তারা।

অধ্যাপক ড. জি. এম. মনিরুজ্জামান নিজের অনুভূতি প্রকাশ করে বলেন, গবেষণার উপর আরেক ধাপ পার হলাম, যা আনন্দের। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন আমার গবেষণাকে নির্বাচিত করল এবং স্বীকৃতি দিল যার মাধ্যমে আমি গবেষণায় আরো উৎসাহ পেলাম। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম অর্জনে সহায়তা করবে এই গবেষণাধর্মী পাণ্ডুলিপি। বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম অর্জনে কিছু করতে পারা নিজের জন্য ভাল লাগার বিষয়। আনন্দের বিষয় হলো, এই পাণ্ডুলিপি বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থীদের পাঠ্যসূচির পাঠ্যবই হিসেবে স্বীকৃতি পাবে।

উল্লেখ্য, সারাদেশ থেকে চারটি বিষয়ের উপর চারটি গবেষণা প্রকাশ করার ঘোষণা দিয়েছিলো বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন। যার মধ্যে সাহিত্যে নির্বাচিত হয়েছে কুবি অধ্যাপক ড. জি এম মনিরুজ্জামানের গবেষণা ‘মধুসূদন এ দীনবন্ধু মিত্রের প্রহসনে সেকালের সমাজ’।

মন্তব্য লিখুন :