ফ্লাইওভার থেকে পড়ে জবি শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু

চট্টগ্রামে ফ্লাইওভার থেকে পড়ে গুরুতর আহত হওয়ার চার দিন পর চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার (১সেপ্টেম্বর) ভোরে হাসপাতালের আইসিইউতে তার মৃত্যু হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম খুলশী থানার ওসি মোহাম্মদ শাহিনুজ্জামান। এ ঘটনায় পরিবার থেকে অজ্ঞাতনামা একটি মামলা করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

এর আগে শুক্রবার (২৭ আগস্ট) মধ্যরাতে চট্টগ্রামের ফ্লাইওভারের উপর থেকে নিচে পড়া অবস্থায় ওই শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে খুলশী থানা পুলিশ। পরে চিকিৎসকরা তাকে আইসিইউতে নেন।

আকবর হোসেন খান নামের ওই শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট বিভাগের ২০১৬-১৭ বর্ষের শিক্ষার্থী। তার গ্রামের বাড়ি মৌলভীবাজার জেলা সদরে। তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজনে শিক্ষার্থীর সঙ্গে পুরান ঢাকার কলতাবাজারের একটি মেসবাড়িতে থাকতেন।

ওই শিক্ষার্থীর মেসমেট ও একই বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৩ ব্যাচের শিক্ষার্থী মোস্তাকিম বলেন, শুক্রবার সকালে তিনি বাসা থেকে ব্যাগ আর ল্যাপটপ নিয়ে বের হন৷ সারাদিন মেসের যাদের সাথে কথা হয়েছে সবাইকে বলেছেন রাতের মধ্যে চলে আসবেন। কিন্তু ঠিক কোথায় আছেন কাউকে সঠিক করে বলেননি। সর্বশেষ রাত ৯টা ৩৭ মিনিটে কথা বলার সময়ও বলেন বাসায় আসবেন। এরকিছু সময় পর রাত ৯টা ৫৪ মিনেটে আমাদের কাছে ফোন আসে ফ্লাইওভার থেকে পড়ে গুরুতর অবস্থায় তাকে চট্টগ্রাম মেডিক্যালে ভর্তি করা হয়েছে। তার সাথে ব্যাগ, ফোন, টাকা সব থাকলেও ল্যাপটপটা পাওয়া যায়নি।

আকবরের আচার-আচরণে কোনো ধরনের অস্বাভাবিকতা মেসের সদস্যদের নজরে পড়েছিল কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, তিনি বেশ কিছু দিন ধরে বিষণ্ন ছিলেন। গার্লফ্রেন্ডদের সাথে ব্রেকআপ হয়েছে। তাই বলে এতটাও বাজে মানসিক অবস্থার মধ্যে ছিল বলে আমাদের মনে হয়নি।

খুলশী থানার ওসি মোহাম্মদ শাহীনুজ্জামান বলেন, তার পরিবার থেকে একটি মামলা করা হয়েছে, আমরা তদন্ত করছি। কোনো ক্রিমিনাল অকারেন্স আছে কি না, সেটা দেখা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, চারদিন আগে ছেলেটা চট্টগ্রাম জিওএস মোড় ফ্লাইওভার থেকে নিচে পড়ে যায়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অজ্ঞান, মাথার পেছনে রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মোস্তফা কামাল বলেন, ফ্লাইওভার থেকে পড়ে সে আহত অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিক্যালে আইসিইউতে লাইফসাপোর্টে ছিল। আজ ভোরে সে মারা যায়। পুলিশ ফ্লাইওভারের আশেপাশের সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করছে, কী ঘটেছিল খতিয়ে দেখার জন্য। আমরা ঘটনা জানার পরপরই হাসাপাতাল, থানাসহ সংশ্লিষ্ট সবার সাথে কথা বলেছি, খোঁজখবর রেখেছি। ও যাদের সাথে মেসে থাকতো, তাদের সাথে কথা বলেছি। পুলিশ বিষয়টি খুবই আন্তরিকতার সাথে দেখছে।

মন্তব্য লিখুন :