গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে নিরাপত্তা ঝুঁকি: দূর্ঘটনার শঙ্কায় কুবি শিক্ষার্থীরা

ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়ক সংলগ্ন বেলতলি বিশ্বরোড মোড়ে আনসার সদস্য না থাকায় যেকোনো সময় দূর্ঘটনার কবলে পরার শঙ্কা দেখা দিয়েছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) শিক্ষার্থীদের।

তাছাড়া অতিরিক্ত গতিতে গাড়ি চালানোর অভিযোগও রয়েছে কুবির বাস চালকদের বিরুদ্ধে।

সরেজমিনে দেখা যায়, বেলতলি বিশ্বরোডের মতো গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে আগে আনসার সদস্য থাকলেও বর্তমানে কোনো আনাসার সদস্য সেখানে দেখা যায় না। ফলে, যেকোনো মুহূর্তে দূর্ঘটনার কবলে পরতে পারে বাসে যাতায়াত করা শিক্ষার্থীরা। তাছাড়া বাসের চালকদের ও অতিরিক্ত গতিতে গাড়ি চালাতে দেখা যায়। মাঝে-মধ্যে তাদের আশেপাশে গাড়ি থাকলেও তা তোয়াক্কা করে না তারা।

নিয়মিত বাসে যাতায়াতকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী রবিউল ইসলাম বলেন, "বেলতলি বিশ্বরোড মোড় দিয়ে ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কে ওঠার সময় গাড়ির চালকরা আশেপাশে না তাকিয়ে সোজা মহাসড়কে উঠিয়ে দেন, ফলে অপর পাশ দিয়ে কোনো গাড়ি আসলে মুখামুখি সংঘর্ষ হওয়ার একটি শঙ্কা রয়েছে। এই ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থা থেকে পরিত্রান পেতে এখানে একজন আনসার সদস্য দেওয়া খুব প্রয়োজন।

নীল বাসের চালক আমির হোসেন বলেন," বেলতলি-বিশ্বরোড মোড় থেকে বিশ্বরোডে ওঠার সময় রাস্তার পাশে থাকা ঝোপ-ঝাড়ের কারণে অপর পাশের গাড়ি দেখা যায় না। এই ঝোপঝাড় গুলো পরিষ্কার করে দিলে ভালো হবে।

অনিয়ন্ত্রিত গতির কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, রোডে গাড়ি ওঠার পর গাড়ি তার নিজস্ব গতিতেই চলে।

কুবির পরিবহন পুলের দায়িত্বে থাকা জাহিদুল ইসলামের সাথে যোগোযোগ করা হলে তিনি বলেন, আনসার সদস্য নিয়োগের বিষয়টি আমাদের হাতে নেই। এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের সাথে কথা বলতে পারেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের বলেন, এখন যেহেতু বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়া হয়েছে এবং আমাদের গাড়িগুলো বেলতলি বিশ্বরোড দিয়ে চলাচল করবে, আমরা সেখানে দ্রুত আনসার সদস্য দেওয়ার ব্যবস্থা করবো।

চালকদের অনিয়ন্ত্রিত গাড়ি চলানোর বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা গাড়ি চালকদের সাথে বসে তাদের পরামর্শ দিবো যেনো কারো জান মালের কোনো ক্ষতি না হয়।

মন্তব্য লিখুন :