নির্বিঘ্নে ঢাকায় ঢুকতে পারবে শ্রমিকবাহী গাড়ি

চলমান কঠোর লকডাউনের মধ্যেই গার্মেন্টসসহ সব কল-কারখানা খুলে দেওয়া হয়েছে। গণপরিবহন বন্ধ থাকলে শ্রমিকরা কীভাবে কাজে যোগ দেবে, সেই প্রশ্নে সমালোচনার মুখে গতকাল শনিবার রাত ৮টা থেকে আজ রোববার দুপুর ১২টা পর্যন্ত গণপরিবহন চালুর ঘোষণা দেওয়া হয়। এবার বলা হচ্ছে, ১২টার পরও শ্রমিকবাহী গাড়ি হলে ঢাকায় ঢুকতে বাধা দেওয়া হবে না।

বাস মালিক সমিতি ও পুলিশের পক্ষ থেকে এই তথ্য নিশ্চিত করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে, ১৬ ঘণ্টা পর আজ দুপুর ১২টা থেকে ঢাকামুখী চেকপোস্টগুলো সচল করা হয়েছে। তবে শ্রমিক আনা-নেওয়ার কাজে নিয়োজিত কোনো গাড়িতে প্রশ্নের মুখে পড়তে হবে না। তারা নির্বিঘ্নে ঢাকায় প্রবেশ ও বেরুতে পারবে। এ ব্যাপারে সরকারের পক্ষ থেকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

১ আগস্ট সকাল থেকে খুলবে সকল শিল্প-প্রতিষ্ঠান, শুক্রবারের এই ঘোষণার পর থেকেই মানুষজন যে যেভাবে পারছে গ্রাম থেকে কর্মস্থলে ফিরছে। গতকাল শনিবার সকাল থেকে মহাসড়কগুলোতে জনস্রোত লক্ষ্য করা যায়। কিন্তু গণপরিবহন না থাকায় ব্যাপক ভোগান্তির মুখে পড়ে মানুষ। বিশেষ করে নারী ও শিশুদের অবস্থা হয় ভয়াবহ।

এ নিয়ে দেশের গণমাধ্যমগুলোতে বেশ ফলাও করে সংবাদ প্রচার করা হয়। পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলতে থাকে ব্যাপক সমালোচনা। সেই প্রেক্ষাপটে গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় সীমিত পরিসরে সকল প্রকার গণপরিবহন চালুর সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। বিজিএমইএর সভাপতি ফারুক হাসান জানান, সরকার শ্রমিকদের স্বার্থে গণপরিবহন চলাচলের অনুমতি দিয়েছে।

মন্তব্য লিখুন :