টিকার এসএমএস দ্রুত পাওয়ানোর কথা বলে টাকা নিত তারা

মোবাইল ফোনে ম্যাসেজ পাঠিয়ে বিদেশগামী ব্যক্তিদের দ্রুত করোনার টিকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল একটি প্রতারক চক্র। তারা দ্রুত এসএসএস পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে এই প্রতারণা করে আসছিল। এর সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে বুধবার রাতে রাজধানীর মুগদা এলাকায় অভিযান চালিয়ে চক্রের চার সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। তাদের কাছ থেকে প্রতারণায় ব্যবহৃত মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে।

র‌্যাব বলেছে, গ্রেফতার ব্যক্তিরা দুই শতাধিক বিদেশগামী ব্যক্তিদের কাছ থেকে আড়াই থেকে পাঁচ হাজার টাকা করে নিয়েছে। গ্রেফতার ব্যক্তিরা হচ্ছেন- নুরুল হক, সাইফুল ইসলাম, ইমরান হোসেন ও দুলাল মিয়া।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর কারওয়ানবাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি বলেন, কিছু সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব জানতে পারে, কয়েকজন প্রতারক বিভিন্ন হাসপাতালের সামনে অবস্থান করে বিদেশগামী প্রার্থীদের মুঠোফোনে ম্যাসেজ পাঠিয়ে দ্রুত টিকা দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছেন।  গণমাধ্যমে এ খবর ছড়িয়ে পড়ায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। এরপর ওই প্রতারকদের আইনের আওতায় নিয়ে আসতে র‌্যাব গোয়েন্দা কার্যক্রম শুরু করে।

বুধবার সন্ধ্যায় র‌্যাব-৩–এর একটি দল মুগদায় অভিযান চালিয়ে প্রতারক চক্রের মূল হোতা নুরুল হক এবং তার তিন সহযোগী সাইফুল ইসলাম, ইমরান হোসেন ও দুলাল মিয়াকে গ্রেফতার করে।

রাজধানীর মুগদা, রমনা ও শেরেবাংলা নগর এলাকায় এসব প্রতারক চক্র তৎপর রয়েছে। র‌্যাব পরিচালক মঈন বলেন, নুরুল দীর্ঘদিন বিদেশে ছিলেন। ২০১৮ সালে ভিসা জটিলতায় তিনি বিদেশে যেতে পারেননি। ১৯৯৮ সালে লিবিয়ায় যান তিনি। প্রতারক চক্রের সদস্য সাইফুল আগে সরকারি কাজ করতেন। অনৈতিক কাজের কারণে তাকে চাকরিচ্যুত করা হয়। সরকারি চাকরি চলে যায়। ইমরান একটি ট্রাভেল এজেন্সি ও দুলাল একটি সরকারি হাসপাতালে আউটসোর্সিংয়ে গাড়িচালক হিসেবে কর্মরত।

মন্তব্য লিখুন :