শতভাগ শিক্ষককে স্কুলে থাকার নির্দেশ

করোনার কারণে বন্ধ থাকা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কয়েক দফা খোলার কথা বলা হলেও শেষ পর্যন্ত তা আলোর মুখ দেখেনি। তবে এবার চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিয়েছে সরকার। এরই অংশ হিসেবে আজ মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) থেকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শতভাগ শিক্ষককে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত থাকার নির্দেশ দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

আপাতত শিক্ষার্থীরা এই নির্দেশনার আওতায় থাকবে না। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে যথাযথ পরিবেশ ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যেই মূলত এই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীদের জন্য প্রতিষ্ঠান উন্মুক্ত করে দেওয়ার আগে শিক্ষকরা সেখানে উপস্থিত হয়ে পাঠদানের বিষয়ে পরিকল্পনা করবেন। প্রতিষ্ঠান পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করার বিষয়টি নিশ্চিত করবেন।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পর পর্যায়ক্রমে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে। এরপর খুলে দেওয়া হবে উচ্চশিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। সেই লক্ষ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) আঞ্চলিক পরিচালকদের নির্দেশনা দিয়েছে দ্রুত সময়ের মধ্যে সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ করতে।

সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, বিশ্ববিদ্যালয়ের শতভাগ শিক্ষার্থীকে টিকার আওতায় আনতে পারলেই ক্যাম্পাস খুলে দেওয়া হবে।

এখনো সেই পরিকল্পনা অনুযায়ীই এগিয়ে যাচ্ছে কর্তৃপক্ষ। শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন সূত্রে জানা গেছে, পরিকল্পনা অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী-কর্মচারীদের টিকা প্রদানের কর্মসূচি প্রায় শেষ পর্যায়ে। তাই উচ্চশিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও দ্রুত খুলে দেওয়া সম্ভব।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আলমগীর মনসুরুল আলম বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার আগে শিক্ষকদের প্রতিষ্ঠান আসতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। উপজেলা ও থানা শিক্ষা অফিসাররা প্রতিষ্ঠানগুলোতে গিয়ে সার্বিক পরিস্থিতি দেখে রিপোর্ট করবেন। তারপরই প্রতিষ্ঠানগুলো শিক্ষার্থীদের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে।

মন্তব্য লিখুন :