ঋত্বিক ঘটকের পৈতৃক ভিটা পরিদর্শন করলেন ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার

বরেণ্য চলচ্চিত্রকার ঋত্বিক ঘটকের পৈতৃক ভিটা পরিদর্শন করেছেন রাজশাহীস্থ ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার সঞ্জিব কুমার ভাটি।

বুধবার দুপুরে রাজশাহী নগরীর মিয়াপাড়া এলাকায় ঋত্বিক ঘটকের পৈতৃক ভিটায় যান তিনি। এ সময় তিনি সবকিছু ঘুরে দেখেন।

ঋত্বিক ঘটক ফিল্ম সোসাইটির সভাপতি ডা. এফএমএ জাহিদ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় চলচ্চিত্র সংসদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ড. সাজ্জাদ বকুল এবং হোমিওপ্যাথিক কলেজের অধ্যক্ষ আনিসুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার তাদের কাছে সবকিছু শোনেন। তবে এটি বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে সাংবাদিকদের কাছে তিনি কোন মন্তব্য করেননি।

ঋত্বিক ঘটকের পৈতিৃক ভিটায় বর্তমানে রাজশাহী হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল। ঋতৃক ঘটকের স্মৃতি বিজড়িত কয়েকটি ঘর এখনও আছে। সম্প্রতি একাংশ ভেঙে কলেজের সাইকেল গ্যারেজ তৈরি করা হচ্ছিল। এরপরই প্রতিবাদ শুরু করেন রাজশাহীর সংস্কৃতিপ্রেমীরা। অবিলম্বে ভাঙার কাজ বন্ধের দাবি জানিয়ে তাঁরা জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দেন।

রাজশাহী এবং ঢাকায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। ওপর বাংলা থেকেও প্রতিবাদ আসতে থাকে। ১২ জন চলচ্চিত্র পরিচালক বিষয়টি নিয়ে সংষ্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেন। এরপরই প্রত্মতত্ব অধিদপ্তরের মহাপরিচালক রাজশাহীর জেলা প্রশাসককে কাজ বন্ধ করার নির্দেশ দেন।

এরই মধ্যে ঋত্বিক ঘটকের পৈতিৃক ভিটা পরিদর্শনে গেলেন ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার। রাজশাহীর সাংষ্কৃতিক ব্যক্তিত্বরা এখন হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালকে অন্যত্র সরিয়ে ঋত্বিক ঘটকের পৈতৃক ভিটাকে জাদুঘর এবং চলচ্চিত্র কেন্দ্র করার দাবি তুলেছেন।

তারা বলছেন, এই বাড়িতে থেকে ঋত্বিক ঘটক রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুল ও রাজশাহী কলেজে পড়াশোনা করেছেন। কথাসাহিত্যিক শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে নাট্যচর্চাও করেছেন এই বাড়িতে থেকে। সেসময় রাজশাহীতে ‘অভিধারা’ নামের একটি পত্রিকা সম্পাদনা করতেন তিনি। ঋত্বিক ঘটকের স্মৃতিবিজড়িত এই বাড়িটি নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।

মন্তব্য লিখুন :


আরও পড়ুন