‘ঢাকা ৭.৫ মাত্রার ভূমিকম্পেও ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা নেই’

ঢাকা শহর ৭.৫ মাত্রার ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা নেই বলে মত দিয়েছেন ভূতত্ববিদরা। মীর মইনুল হক মেমোরিয়াল লেকচার সিরিজের ব্যানারে একটি মাসিক ভার্চুয়াল সভায় এই মত দেন ভূতাত্ত্বিক এবং প্রকৌশলীরা। 

বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) বাংলাদেশে ভূমিকম্পের পুনরাবৃত্তির পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনায় এই বিষয়ে কথা বলেন বিশেষজ্ঞরা। ওয়েবিনারে বাংলাদেশ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, যুক্তরাজ্য, নরওয়ে, অস্ট্রেলিয়া এবং বিশ্বের অন্যান্য অংশের ভূ-বিজ্ঞানীরা যোগ দেন।

আলোচনা সভায়, "ভূমিকম্প ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা এবং বাংলাদেশে টেকসই উন্নয়নের জন্য বেঙ্গল অববাহিকার ভূ-প্রযুক্তিগত চিত্রের উপর একটি গবেষণা পত্র উপস্থাপন করেন বাংলাদেশের ভূতাত্ত্বিক জরিপ বিভাগের প্রাক্তন পরিচালক এবং বর্তমানে আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস এর জন টার্নার কনসাল্টিং ইনক এর পরামর্শক মীর ফজলুল করিম। বাংলাদেশের বিশাল ভূমিকম্পের পুনরাবৃত্তি সম্পর্কে নির্ভরযোগ্যতা বোঝার জন্য ব্যাপক গবেষণা ও মাঠের কাজ করেছেন তিনি।

ফজলুল করিম এর গবেষণা পত্রটি কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল ভূতত্ত্ববিদদের পূর্ববর্তী ভবিষ্যদ্বাণী অনুসরণ করে তৈরি। গবেষণাটি লামন্ট-দোহার্টি আর্থ অবজারভেটরির ঢাকা শহরে ৯ মাত্রার ভূমিকম্পের ঘটনাটি এবং বাংলাদেশের মধ্যবর্তী অঞ্চল পর্যন্ত টেকটোনিক মেগাথ্রাস্ট জোনের পূর্ববর্তী ভবিষ্যদ্বাণী অনুসরণ করেছে ভূতত্ত্ববিদরা বলে বলা হয় গবেষণায়।

ফজলুল করিম দাবি করেছেন যে, ঢাকায় ৯ মাত্রার ভূমিকম্পের প্রকাশিত মানচিত্র এবং তথ্যটি কেবল অত্যধিক অনুমান নির্ভর এবং দৃঢ় বৈজ্ঞানিক প্রমাণ ছাড়াই। আর এই ৯ মাত্রার ভূমিকম্পের পূর্বাভাসটি সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করেছিল এবং বাংলাদেশের অবকাঠামো নির্মাণ ব্যয় বৃদ্ধি করেছে।

করিম আরও দাবি করেন, ঢাকায় প্রায় ১৫০ কিলোমিটার পেরিফেরিয়ালে ৫.৫ মাত্রার ভূমিকম্প হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তারা যদি মান বজায় রাখে তবে ঢাকা বাসীর উদ্বেগের কিছু নেই বলেও জানান তিনি।

মূল বক্তৃতার পরে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতাত্ত্বিক বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড। এটিএম শাখাওয়াত হুসেন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রফেসর ডাঃ মোঃ জিল্লুর রহমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

মন্তব্য লিখুন :