রূপপুরের পর্দাকাণ্ড: আলোচিত সেই টেন্ডার বাতিল

পাবনার ঈশ্বরদীতে নির্মাণাধীন রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্পে রাশিয়ানদের থাকার জন্য নির্মাণ করা হচ্ছে গ্রিন সিটি আবাসন। সেখানকার ভবনে আসবাবপত্র ও গৃহস্থালি জিনিসপত্র কেনার জন্য দুটি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছিল। প্রশ্ন ওঠায় পর্দা ও জনশুমারি প্রকল্পের ছোট ল্যাপটপ ক্রয়ের টেন্ডার দুটি বাতিল করেছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।

আজ বুধবার অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামালের সভাপতিত্বে কমিটির এক ভার্চ্যুয়াল সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। প্রস্তাব দুটি রিটেন্ডার করতে অর্থমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব শামসুল আরেফিন। এ সময় ‘কিছু নিয়মের ব্যতয়’ ঘটায় প্রস্তাব দুটি ফেরত পাঠানোর কথা উল্লেখ করেন তিনি।

ট্যাব কেনার বিষয়টিতে ত্রুটি ধরা পড়েছে উল্লেখ করে শামসুল আরেফিন বলেন, সেজন্য জনশুমারি ও গৃহগণনা প্রকল্প বাতিল করে রিটেন্ডার করতে বলা হয়েছে। এই কাজে ফেয়ার ইলেকট্রনিক্স লিমিটেডকে সুপারিশ করেছিল বিবিএসের মূল্যায়ন কমিটি। সেইসঙ্গে পর্দা সরবরাহ এবং স্থাপনের টেন্ডারটিও বাতিল করা হয়েছে।

সভায় জানানো হয়, গ্রিন সিটির ডব্লিউডি-২৫ প্যাকেজের পর্দা সরবরাহ এবং স্থাপনে উম্মুক্ত দরপত্র আহ্বান করা হয়েছিল। ২টি প্রতিষ্ঠান দরপত্র জমা দিলে তার মধ্যে ইউরোশিয়া ফেল্ট ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডকে বেছে নেয় দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি। দাম বেশি হওয়ায় প্রস্তাবটি বাতিল করেছে কমিটি। দুটি ভবনের ১৯৬টি ইউনিটের পর্দা সরবরাহে ৪ কোটি ৬৭ লাখ ৫৯ হাজার ৫৪৫ টাকা ব্যয় করার কথা ছিল। সে হিসেবে প্রতিটি ইউনিটে ২ লাখ ৩ হাজার ৫৬৯ টাকা খরচ হতো পর্দায়।

জনশুমারি ও গৃহগণনা প্রকল্পের ৩ লাখ ৯৫ হাজার ট্যাবলেট ক্রয়ের জন্য উম্মুক্ত পদ্ধতিতে ২টি দরপত্র জমা পড়েছিল। এর মধ্যে ফেয়ার ইলেক্ট্রনিকস লিমিটেড ৫৪৮ কোটি ৭৩ লাখ ১৭ হাজার ৭০ টাকা এবং ওয়ালটন ডিজি-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড ৪০২ কোটি ৪৩ লাখ ৭৯ হাজার ৭৯০ টাকা দর হাঁকে। দেশীয় প্রতিষ্ঠানটি ১৪৬ কোটি ২৯ লাখ ৩৭ হাজার ২৮০ টাকা কম দরদাতা হলেও সুপারিশ করা হয় ফেয়ার ইলেক্ট্রনিকসকে। এই দরপত্রটিও বাতিল করা হয়েছে আজকের সভায়।

পাবনার ঈশ্বরদীতে নির্মাণ করা হচ্ছে দেশের প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ‘রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র’। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অধীনে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন। আর এ প্রকল্পে কাজ করা রাশিয়ানদের জন্য রূপপুরে নির্মাণ করা হচ্ছে চারটি ২০ তলা ও ছয়টি ১৬ তলা বিশিষ্ট আবাসিক ভবন। এ ১০টি ভবনে মোট ইউনিট থাকবে ৯৫৬টি। যার প্রতিটির আয়তন হবে ১ হাজার ২৫০ বর্গফুট। ডেলিগেটেড ওয়ার্ক হিসেবে এই রূপপুর গ্রিন সিটি আবাসিক পল্লী নির্মাণ প্রকল্পের কাজ করছে গণপূর্ত অধিদপ্তর।

মন্তব্য লিখুন :