প্রাণের শিক্ষকদের শাসনেই আজ আমি আপনাদের প্রিয় ডা.এনাম

বাংলাদেশ সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান শিক্ষকের প্রতি ভালোবাসা আর সম্মান প্রদর্শন করে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লিখেছেন শিক্ষক ছাত্রের ভালোবাসার গল্প।

প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমানের লিখাটি হুবহু তুলে ধরা হলোঃ

ছাত্রকে আর্শিবাদ করছেন শিক্ষক। তাঁর সেই দূরন্ত ছাত্র এখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের প্রতিমন্ত্রী। আর সেই শিক্ষার্থী যদি সরকারি সফরে শিক্ষকের বাড়ির আঙিনায় কাছে আসে তখন শিক্ষককের সাথে সাক্ষাৎ না করা পর্যন্ত ছাত্রের সফরের পরিপূর্ণতাও আসে না।

বলছি, আমার স্কুল শিক্ষক শ্রদ্ধেয় বনমালী পালের কথা। আমার শৈশব, কৈশোর কেটেছে বিভাগীয় শহর রংপুরে।

১৯৭৩ সালের কথা। আমি তখন রবার্টসনগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরিক্ষার্থী‌। স্যার আমাদের পড়াতেন ইংরেজি।

ছাত্র হিসেবে আমি ছিলাম বেজায় ডানপিটে। কেবলমাত্র ডানপিটে স্বভাবের কারণেই যে স্যারের হাতে যে কত পিটুনি খেয়েছি তার কোন হিসেব নেই।

আমার সেই প্রাণের শিক্ষকদের শাসনেই আজ আমি আপনাদের প্রিয় ডা.এনাম।

নানান ব্যস্ততার মাঝেও আমি চেষ্টা করি আমার সেই প্রিয় শিক্ষকদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করতে। স্যারদের নিয়মিত খোঁজ খবর নেয়াটা আমার রুটিন কাজ। তাঁদের চিকিৎসা থেকে নানান প্রয়োজনে যখনই পাশে থাকার সুযোগ পাই তখন ছাত্র হিসেবে নিজেকে সার্থক এবং গর্বিত মনে হয়।

সৌভাগ্য নিজের জীবদ্দশায় প্রিয় শিক্ষকদের আশীর্বাদের ছায়া এখনো ঘিরে রেখেছে আমাকে।

বনমালী পাল স্যার রবার্টসনগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে অবসরে নিয়েছেন সেই ২০০৫ সালে। তারপর ও অবসর আসেনি জীবনে।

স্থানীয় মুসলিম উদ্দিন কিন্টারগার্টেনের অধ্যক্ষ হিসেবে এখনো শিক্ষার আলোয় আলোকিত করে চলেছেন রংপুরকে।

স্যারের জন্য পরম শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা।

মন্তব্য লিখুন :