ইউপিতে বিনা ভোটে নৌকার চেয়ারম্যান হওয়ার রেকর্ড

এবারের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের তিন ধাপে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা নৌকা নিয়ে বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়ে রেকর্ড গড়েছেন। তিন ধাপে চেয়ারম্যান পদে ২৫০ জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। যা পাঁচ বছর আগের রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে।

দেশে প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৬ সালে। ছয় ধাপে অনুষ্ঠিত হওয়া ওই ইউপি নির্বাচনে নৌকার ২১২ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন।

চেয়ারম্যান পদে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগসহ অন্তত দেড় ডজন দল ইউপি নির্বাচনের এই তিন ধাপে প্রার্থী দিয়েছে। কিন্তু তাদের মধ্যে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় যারা নির্বাচিত  হয়েছেন, তাদের সবাই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী।

প্রথম ধাপে চেয়ারম্যান পদে ৬৯ জন প্রার্থী ভোট ছাড়াই নির্বাচিত হয়ে যান। দ্বিতীয় ধাপে চেয়ারম্যান হন ৮১ জন এবং তৃতীয় ধাপের ১০০৪ ইউপিতে ১০০ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।  তৃতীয় ধাপের ১০০৪ ইউপিতে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ছিল গতকাল (বৃহস্পতিবার)। ২৮ নভেম্বর এসব ইউপিতে ভোট হবে।

নির্বাচন কমিশনের জনসংযোগ পরিচালক (যুগ্ম সচিব) এসএম আসাদুজ্জামান গণমাধ্যমকে বলেন, তৃতীয় ধাপে চেয়ারম্যান পদে ১০০ জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এ ছাড়া বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন সাধারণ সদস্য পদে ৩৩৭ জন এবং নারী সদস্য পদে ১৩২ জন।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এত চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার গণমাধ্যমকে বলেন, নির্বাচন না করেই চেয়ারম্যান পদে এত বেশি প্রার্থীর অভিষিক্ত হওয়া এই নির্বাচনকে ম্লান করে দিয়েছে। এটাকে নির্বাচন বলা যায় কিনা, এমন প্রশ্নও রাখেন তিনি।

মন্তব্য লিখুন :