হোচট খেলো বাগেরহাট জেলা বিএনপির নবগঠিত আহবায়ক কমিটি

জেলা আহ্বায়ক কমিটির প্রথম সভাতেই হোচট খেলেন বাগেরহাট জেলা বিএনপির নবগঠিত আহবায়ক এ,টি,এম, আকরাম হোসেন তালিম।

গত ২১ ডিসেম্বর জেলা বিএনপির অনুমোদিত নতুন আহবায়ক কমিটির ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট সদস্যের প্রথম সভা গত ১৮ জানুয়ারী বাগেরহাট বিএমএ ভবনে অনুষ্ঠিত হয়।

আহ্বায়ক এ,টি,এম, আকরাম হোসেন তালিমের সভাপতিত্বে নব গঠিত কমিটির সদস্য সচিব মোজাফ্ফর রহমান আলমকে পাত্তা না দিয়ে আহবায়ক নিজেই কমিটির সাংগঠনিক মিটিং ডাকার কারনে সদস্য সচিবসহ ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট জেলা কমিটির মাত্র ১২ জন সদস্য উপস্তিত ছিলেন। 

আহ্বায়কের একতরফা সিদ্ধান্তের সাথে দ্বিমত পোষন করে জেলা কমিটির সদস্য সচিব জনাব মোজাফ্ফর রহমান আলম সাহেব তার অনুগতদেরকে নিয়ে মিটিং বর্জন করেন।

এমন অবস্থায় বাগেরহাট বিএনপি এক চরম সংকটময় মুহূর্ত পার করছে।

সদস্য সচিব মোজাফ্ফর রহমান আলম অভিযোগ করে বলেন,বাগেরহাট জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি জননেতা এম,এ, সালাম ২০০৯ সালে জেলার সভাপতির দ্বায়িত্ব গ্রহন করেন।  ১/১১ সময় থেকে তিনি দলকে সুসংগঠিত করে আসছেন,তার নেতৃত্বে বিগত আন্দোলন-সংগ্রামে বাগেরহাট বিএনপি শক্তিশালী ভূমিকা রেখেছেন। আন্দোলন-সংগ্রাম করতে গিয়ে তিনিসহ জেলা বিএনপি'র সাবেক সাধারন সম্পাদক আলী রেজা বাবু, জেলা বিএনপি নেতা -এ্যাড ওহিদুজামান দিপু,এস্কেন্দার হোসেন,এ্যাড আসাদুজ্জামান, এ্যাড হাই,এ্যাড মনোয়ার,এ্যাড আলতাফ, মাহাবুবুল রহমান টুটুল, মতিয়ার খান, জেলা তাতী দলের সভাপতি এ্যাড. শাহাদাৎ হোসেন,সাজ্জাদ হোসেন, জেলা যুব দলের সভাপতি মেহবুবুল হক কিশোর,বাবু মোল্লা, এড সহিদসহ বহু নেতা-কর্মী মামলা হামলার শিকার হয়েছেন।

এছাড়া মামলা হামলার শিকার হওয়া জেলার অনেক গুরুত্বপূর্ণ নেতৃবৃন্দকে আহবায়ক কমিটিতে অন্তভূক্ত না করাসহ আহ্বায়কের খামখেয়ালিপনা কার্যক্রমের বিরুদ্ধে অবস্থান নিতেই এই সভা বর্জন করা হয়।

তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন, আহবায়কসহ তার অনুগতদের ২০০৯ সাল থেকে এখনো পর্যন্ত হামলা বা মামলার শিকার হয় নি। 

নেতা কর্মীরা অভিযোগ করে বলেন, বিগত দিনে কখনও তালিম সাহেবকে মিছিল করতে শহরে দেখা যায় নি।

তিনি আরো বলেন ১৯৯৬ নির্বাচনে সাবেক মহাসচিব আ.স.ম মোস্তাফিজুর রহমানের পরাজয়ের ও ভরাডুমির নায়ক হিসাবে আকরাম হোসনে তালিম কে জানে জেলার নেতাকর্মীরা। ৯৬ থেকে এপর্যন্ত প্রকাশ্যে বা গোপনে কোন নেতাকরমির সাথে যোগাযোগ রাখেনি হঠাৎ আকস্মিক বিএনপির আহব্বায়ক হওয়াই অমরা হতাশ। এমনকি গত তিন মেয়াদের কমিটিতে বড় পদে থাকলেও কোন কার্যক্রমে দেখা যায়নি তাকে। 

মন্তব্য লিখুন :