তামিম-মুশফিকদের বিশ্রাম দিতে চায় বিসিবি

পুরো বিশ্বকেই বদলে দিয়েছে করোনা ভাইরাস। ক্রিকেটেও এসেছে ব্যাপক পরিবর্তন। ভিনদেশে সিরিজ খেলতে হলে সব খেলোয়াড়কে করতে হয় করোনা পরীক্ষা। কোয়ারেন্টাইন ও জৈব সুরক্ষা বলয়ের কারণে দীর্ঘ সময় হোটেলে বন্দি থাকতে হয় ক্রিকেটারদের। যে কারণে বিশ্রাম কিংবা পরিবারের সাথে থাকার সময় এবং সুযোগ উভয়ই কমে গেছে ক্রিকেটারদের।

যে টাইগারদের জয়ে কোটি ক্রিকেট পাগল বাঙালি তাদের পরিবারকে সাথে নিয়ে আনন্দের মুহূর্ত উৎযাপন করে সেই মহেন্দ্র ক্ষণের স্রষ্টারা কে কবে পরিবারের সাথে সুখের মুহূর্ত কাটিয়েছে তা যেন ভুলতে বসেছে তারা নিজেরাই। জাতীয় দলের নিয়মিত ক্রিকেটারদের ক্ষেত্রে তা আরও কম। বাংলাদেশের তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান কিংবা মাহমুদউল্লাহ রিয়াদরাও এর ব্যতিক্রম নন। করোনা বিরতির পর প্রথম জৈব সুরক্ষা বলয়ে থেকে বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ খেলেন তারা। এরপর একই নিয়মে বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ এবং এরপর ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ। সেখান থেকে উড়াল দিতে হয় নিউজিল্যান্ডে। সিরিজ শেষ করে দেশে ফিরেই ধরতে হয় শ্রীলঙ্কার বিমান। এরপর দেশের মাটিতেই আবার তাদের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ, আর এখন ঢাকা প্রিময়ার লিগ।

ফলে অনেক দিন ধরেই জৈব সুরক্ষা বলয়ে বন্দি বাংলাদেশ দলের খেলয়াররা যেন হাঁপিয়ে উঠেছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এই করোনাকালীন কঠিন পরিস্থিতিতে ক্রিকেটারদের 'ওয়ার্ক লোড ম্যানেজমেন্টে'র কথা চিন্তা করে 'বাই রোটেশন পদ্ধতি'তে নিয়মিত ক্রিকেটারদের বিশ্রাম দিয়ে থাকে।

ক্রিকেটারদের হোটেল রুমে একাকিত্ব দূর করতে অনেক দেশও দিচ্ছে পরিবার নিয়ে সফর করার অনুমতি। এবার বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডও (বিসিবি) হাঁটতে যাচ্ছে সেই পথে। 'বাই রোটেশন পদ্ধতি'তে মুশফিক-তামিমদের বিশ্রাম দেয়ার ব্যাপারে ভাবছে বোর্ড। এমনটাই জানিয়েছেন বিসিবির নির্বাচক আব্দুর রাজ্জাক।

সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, 'অবশ্যই ভাবছি আমরা। সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হল এখন জৈব সুরক্ষা বলয়ে থাকতে হয়। যারা জাতীয় দলে নিয়মিত ক্রিকেটার তাদের কথা একটু মনোযোগ দিয়ে চিন্তা করেন, তারা কতদিন ধরে এই বলয়ে। হিসেব করে দেখেন আসলেই কঠিন।'

তিনি আরও বলেন, 'আমরা তো শুধু পারফরম্যান্স দেখতে চেষ্টা করি।কিন্তু এটাও বিবেচনায় রাখা উচিৎ, যারা ক্রিকেট নিয়ে কথা বলে তাদের এসব হিসেব করা উচিৎ। কারণ খুবই স্বাভাবিকভাবে এরকম একটা চিন্তা করা হচ্ছে যেন ঘুরিয়ে ফিরিয়ে বিশ্রাম দেয়া, আরেকটা জিনিস হল বোর্ড যদি অনুমতি দেয় পরিবার নিয়ে এক সাথে থাকবে।'

মন্তব্য লিখুন :