‘ব্যাট হল প্রতিবেশীর স্ত্রীর মতো, যা সবসময় ভালো লাগে’

ধারাভাষ্যে তাঁর হাতে খড়ি হয়েছে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালে। ক্রিকেট থেকে অবসরের আগেই ধারাভাষ্যকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন দীনেশ কার্তিক। আর অভিষেকেই কিনা বিতর্ক!

ইংল্যান্ডের সাউদাম্পটনে ভারত-নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার সদ্য শেষ হওয়ায় টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে ধারাভাষ্য পেশায় অভিষেক হয় কার্তিকের।

নতুন এ পেশায় প্রশংসা কুড়ালেও বিতর্কিত মন্তব্যের কারণে সমালোচনার মুখে পড়েছেন ভারতীয় এ উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান।

গত বৃহস্পতিবার ইংল্যান্ড এবং শ্রীলঙ্কার মধ্যকার দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ধারাভাষ্য করার সময় হঠাৎ করেই কার্তিক বলে ফেলেন, ব্যাট হল প্রতিবেশীর স্ত্রীর মতো, যা সবসময় ভালো লাগে।

কলকাতা নাইট রাইডার্সের এই তারকা ক্রিকেটার ব্যাটসম্যানদের মানসিকতা নিয়ে বক্তব্য রাখছিলেন। তিনি বোঝানোর চেষ্টা করেছিলেন, ব্যাটসম্যানরা নিজের ব্যাট নিয়ে অসন্তুষ্ট হলেও অন্য ক্রিকেটারদের সরঞ্জামে আগ্রহী।

আসলে মজা করে এই কথাগুলো বলেছিলেন কার্তিক। ব্যাট নিয়ে ব্যাটসম্যানদের আসক্তি এক-একরকম হয়। সঠিক ওজনের, সঠিক ব্যাট খোঁজার জন্য মরিয়া থাকেন তাঁরা। শচিন টেন্ডুলকার একটু ভারী ব্যাট ব্যবহার করতেন। মহেন্দ্র সিং ধোনি আবার একটু হালকা। অসংখ্য ব্যাটের মধ্যে থেকে পছন্দের ব্যাট খুঁজে বের করেন তাঁরা। কিন্তু ওই আসক্তি বা খুঁতখুঁতে স্বভাবের সঙ্গে ‘পরস্ত্রী আসক্তি’কে মেলানো যায় না। এই কারণেই বিতর্কের মুখে পড়েছেন কার্তিক।

এই বিষয়ে ব্যাখ্যা করার সময়ে কার্তিক জানান, ব্যাটসম্যানদের কাছে অন্যের ব্যাট প্রতিবেশীর স্ত্রীর মতো। অধিকাংশ ব্যাটসম্যান নিজের ব্যাটের পরিবর্তে অন্যের ব্যাটে খেলতে পছন্দ করেন।

এমন বক্তব্যের পরই নেটিজেনরা কার্তিকের বিরুদ্ধে নারী বিদ্বেষের অভিযোগ তোলেন। যে কারণে তিনি প্রকাশ্যে ক্ষমা চান।

মন্তব্য লিখুন :